পুলিশদ্বারা যদি জনগণের কোনো ক্ষতির খবর পাই তবে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে-শ্রীমঙ্গলে পুলিশ সুপার

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ বলেছেন, পুলিশ দিয়ে কোনো মানুষ অন্যায়ভাবে যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। এটা হচ্ছে আমার প্রথম কথা। পুলিশদ্বারা যদি জনগণের কোনো ক্ষতির খবর পাই তবে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সকল মানুষ দূরের জেলা সদরে আমার কাছে অনেক সময় যেতে পারে না। তাই থানা হবে জনগণের আশ্রয়স্থল, জনগণের সেবা কেন্দ্র।’

বৃহস্পতিবার (১২ই সেপ্টেম্বর) বিকালে পুলিশ সুপার মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, ইভটিজিং,বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে ও আসন্ন শারদীয় দূর্গাপুজা উপলক্ষে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি কথাগুলো বলেন।

শ্রীমঙ্গল জেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ এ সমাবেশের আয়োজন করে। উপজেলার জনপ্রতিনিধি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এতে অংশগ্রহণ করেন।

পুলিশ সুপার উপস্থিত সুধীজন ও জনতার উদ্দেশ্যে বলেন,১৬ বছরের চাকুরী জীবনে দূূর্নীতি করিনী,মাদক ব্যবসায়ী সমাজের শত্রু এদের ব্যপারে আমাদের সজাগ থাকতে হবে এদের সঠিক তথ্য দিয়ে আপনারা পুুুলিশকে সহায়তা করুন।

জনতার উদ্দেশ্যে পুলিশ সুপার বলেন, ‘কোথাও মাদক সেবন, বিক্রির তথ্য থাকলে ওসিকে জানাবেন। ওসি যদি কোনো ব্যবস্থা না নেন আর ওই এলাকায় মাদক বিস্তারের খবর আমার কাছে পৌঁছে, তাহলে সংশ্লিষ্ট থানার ওসিকে জবাবদিহি করতে হবে। অবহেলা সহ্য হবে না।

পুলিশ সুপার আরো বলেন, ‘নিজের আত্মপ্রচারের জন্য বলছি না। ষোল বছরের চাকুরী জীবনে দুর্নীতি করি নাই। সরকারি বেতনের টাকায় চলি। সুতরাং আমার নাম দিয়ে কেউ পয়সা জনগণের কাছ থেকে নিতে পারবে না। এ ম্যাসেজ সবার কাছে পৌঁছাবেন। কিভাবে কাজ করতেছি। পুলিশ দিয়ে কোনো মানুষ অন্যায়ভাবে যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। এটা হচ্ছে আমার প্রথম কথা। পুলিশদ্বারা যদি জনগণের কোনো ক্ষতির খবর পাই তবে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সকল মানুষ দূরের জেলা সদরে আমার কাছে অনেক সময় যেতে পারে না। তাই থানা হবে জনগণের আশ্রয়স্থল, জনগণের সেবা কেন্দ্র।’

অপরাধীদের আইনের আওতায় নিয়ে আসার কাজ চলছে জানিয়ে পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ আরো বলেন, ‘সকল অপরাধীদের তালিকা করা হচ্ছে। জনগণের কাছে অপরাধীদের তালিকা দেওয়া হবে। যাতে জনগণের সহায়তায় দ্রুত সময়ে অপরাধীদের সনাক্ত করা যায়। আইনের আওতায় নেওয়া সম্ভব হয়। এক্ষেত্রে জনগণের সহযোগিতা প্রয়োজন।’

জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে সুধী সমাবেশের সুচনা করেন পুলিশ সুপার।

সুধী সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুস ছালেক পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত)সোহেল রানার সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান রনধীর কুমার দেব, শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম, জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(অপরাধ ও প্রসাশন)আনোয়ারুল হক,সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মো.আশরাফুজ্জামান, শ্রীমঙ্গল পৌর মেয়র মহসিন মিয়া,জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ মনসুরুল হক, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আছকির মিয়া, সাবেক বিভাগীয় স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. হরিপদ রায়, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রেমসাগর হাজরা, সদর ইউপি চেয়ারম্যান ভানুলাল রায়, কালিঘাট ইউপি চেয়ারম্যান প্রাণেশ গোয়ালা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মিতালী দত্ত, শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাব সভাপতি বিশ্বজ্যোতি চৌধুরী।

সুধী সমাবেশের উন্মুক্ত আলোচনায় বক্তব্য দেন মানবাধিকার কর্মী এসকে দাশ সুমন,উপজেলা যুবলীগ সভাপতি বেলায়েত হোসেন, প্রেসক্লাব সভাপতি বিশ্বজ্যোতি চৌধুরী, সদর ইউপি চেয়ারম্যান ভানুলাল রায়, আশীদ্রোন ইউপি চেয়ারম্যান রনেন্দ্র প্রসাদ বর্ধন, শ্রীমঙ্গল বনিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন, বদরুল আলম শিপলু, সাবেক ইউপি সদস্য ফরিদ মিয়া, পরিবহন শ্রমিক নেতা শাহজাহান মিয়া প্রমুখ।

Sharing is caring!

Loading...
Open