জাপায় দ্বন্দ্ব অব্যাহত প্রার্থী দিচ্ছে দুই পক্ষই

সুরমা টাইমস ডেস্ক:: জাতীয় পার্টির শীর্ষস্থানীয় দুই নেতার মধ্যে নেতৃত্ব নিয়ে সৃষ্ট বিরোধের সুরাহা শিগগির হচ্ছে না। এর মধ্যেই রওশন এরশাদকে বিরোধীদলীয় নেতা এবং জি এম কাদেরকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে রেখে একটি সমঝোতাচেষ্টার খবর ছড়িয়েছে। এইচ এম এরশাদের পরিবারের পক্ষ থেকে এমন উদ্যোগের গুঞ্জন থাকলেও গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত তেমন কোনো পদক্ষেপের খবর জানা যায়নি।

এ অবস্থায় গতকাল জি এম কাদেরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত যৌথ সভায় রওশন এরশাদের অনুসারী হিসেবে পরিচিত জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ও ফকরুল ইমামকে বহিষ্কারের দাবি উঠেছে।

প্রয়াত রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ গঠিত জাতীয় পার্টির পার্লামেন্টারি বোর্ড রয়েছে। অন্যদিকে গত বৃহস্পতিবার জাপার নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে নিজের নাম ঘোষণার পর রওশন এরশাদ একটি পার্লামেন্টারি বোর্ড গঠন করেছেন। ওই বোর্ড রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচনে দলীয় প্রার্থী বাছাই করবে। এই উপনির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন আগামী ৯ সেপ্টেম্বর। তার আগেই দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করতে হবে।

জি এম কাদের দলীয় প্রার্থী মনোনয়নের জন্য গতকাল বিকেলে পার্লামেন্টারি বোর্ডের সভা করেছেন। এরপর সন্ধ্যায় তিনি দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সংসদ সদস্যদের নিয়ে যৌথ সভা করেন। জাপার ৫১ সদস্যের প্রেসিডিয়ামের ৩৭ জন এবং ২৫ জন সংসদ সদস্যের মধ্যে ১৭ জন সভায় উপস্থিত ছিলেন বলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে।

জাতীয় পার্টির বনানীর কার্যালয়ে জি এম কাদেরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই সভায় দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ও ফকরুল ইমামকে বহিষ্কারের দাবি উঠেছে।

সভা শেষে এক ব্রিফিংয়ে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশিদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘রওশন এরশাদকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ঘোষণা করা গঠনতান্ত্রিকভাবে অবৈধ। দলীয় গঠনতন্ত্র অনুসারে জি এম কাদেরই পার্টির চেয়ারম্যান।’ তিনি বলেন, ‘যাঁরা গঠনতন্ত্রবিরোধী কাজ করছেন তাঁরা দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করছেন। প্রেসিডিয়াম সভায় তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জোরালো দাবি উঠেছে। এ বিষয়ে আমরা দ্রুতই সিদ্ধান্ত নেব।’

জি এম কাদেরই রংপুর উপনির্বাচনে প্রার্থী দেবেন জানিয়ে ফিরোজ রশিদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘রংপুর উপনির্বাচনে অবশ্যই জাতীয় পার্টি প্রার্থী দেবে এবং জি এম কাদেরের নেতৃত্বে জাপার প্রার্থী জয়লাভ করবে।’

অন্যদিকে রওশন এরশাদ গতকাল পর্যন্ত পার্লামেন্টারি বোর্ডের কোনো সভা না করলেও রংপুর উপনির্বাচনে তিনিই প্রার্থী দেবেন বলে তাঁর অনুসারীরা জানিয়েছেন। তাঁর অনুসারী হিসেবে পরিচিত জাপার আরেক প্রেসিডিয়াম সদস্য ফকরুল ইমাম বলেন, পার্টির চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ। তিনি দলীয় মনোনয়ন বোর্ড গঠন করেছেন। তিনি দলীয় প্রার্থী দেবেন বলেই পার্লামেন্টারি বোর্ড গঠন করেছেন।

‘লাঙল’ আদালত পর্যন্ত গড়াতে পারে : জাতীয় পার্টির দুই পক্ষের নেতারাই জানান, জি এম কাদের ও রওশন এরশাদ পৃথক পার্লামেন্টারি বোর্ড থেকে দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করলে বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়াতে পারে। লাঙল প্রতীক নিয়ে শেষ পর্যন্ত আদালতের দ্বারস্থ হতে হবে দুই পক্ষকে। একাদশ সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-৮ আসনে জাপার প্রার্থী অ্যাডভোকেট ইউনুস গতকাল কালের কণ্ঠকে জানান, এরশাদের প্রকৃত উত্তরসূরির নির্দেশনা চেয়ে তিনি উচ্চ আদালতে রিট মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

আওয়ামী লীগ হস্তক্ষেপ করবে না : জাতীয় পার্টির ভেতরেও একটি গুঞ্জন আছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ জাপার বিরোধ মীমাংসার উদ্যোগ নিতে পারে। তবে জাপার অভ্যন্তরীণ বিষয়ে আওয়ামী লীগ হস্তক্ষেপ করবে না বলে জানিয়ে দিয়েছেন দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। গতকাল রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে যুবলীগের এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘জাতীয় পার্টির নেতৃত্বের কোন্দল তাদেরই মেটাতে হবে। এ নিয়ে আওয়ামী লীগ কোনো কথা বলবে না।’

Sharing is caring!

Loading...
Open