বিয়ানীবাজারে কৌশল পাল্টিয়েছে মোটর সাইকেল চোররা!

বিয়ানীবাজার প্রতিনিধি;: প্রবাসী অধ্যুষিত এলাকা হিসেবে পরিচিত বিয়ানীবাজারে দিন দিন বেঁড়েই চলেছে মোটর সাইকেল চুরি। গত কয়েক বছরে এখানে বেড়েছে মোটর সাইকেল চোরদের উৎপাত। সম্প্রতি এ উৎপাতে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ। মোটর সাইকেল রেখে দোকানে বা কাজে গেলে ফিরে এসে আর গাড়িটি পাচ্ছেন না তারা।উপজেলাজুড়ে মোটর সাইকেল চুরির যে হিড়িক পড়েছে, তা কোনভাবেই যেন বন্ধ হচ্ছে না।

এদিকে চুরি ঠেকাতে থানা পুলিশ সক্রিয় থাকলেও এক্ষেত্রে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে চোরচক্র। বিভিন্ন পদ্ধতিতে তারা বিভিন্ন স্থান হতে মোটর সাইকেল নিয়ে উধাও হচ্ছে। যার কারণে আটক করা যাচ্ছে না মোটর সাইকেল চোঁরদের।

বিয়ানীবাজার থানা পুলিশ জানিয়েছে, চুরি যাওয়া গাড়ি ও চোরদের ধর‍তে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। কয়েকদিন আগে বেশ কয়জন মোটর সাইকেল চোরকে ধরে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।
অপরদিকে পুলিশ সক্রিয় থাকার পরও থেমে নেই চোর চক্র। সাধারণ মানুষ ও ব্যবসায়ীদের ধারণা এই চোরদের পিছনে শক্তিশালী চক্র কাজ করছে। যার কারণে চোরদের ধরতে ব্যর্থ হচ্ছে পুলিশ। তাছাড়া মোটর সাইকেল চুরির সময় হাতেনাতে আটককৃত চোররা জামিনে বেরিয়ে আসার পর থেকেই আবারো বৃদ্ধি পেয়েছে মোটর সাইকেল চুরি। অথচ তাদের ব্যাপারে অনেকটা নিরব ভূমিকায় পুলিশ।

এব্যাপারে বিয়ানীবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অবনী শংকর কর বলেন, আমরা মোটর সাইকেল চোরদের বিষয়ে জিরো টলারেন্সে আছি। চোরদের ধরতে সোর্স কাজ করছে। তিনি বলেন, যারা মোটর সাইকেল চুঁরি করছে তাদেরকে কোন অবস্থায় ছাড় দেয়া হবে না।
উল্লেখ্য, গত (২রা সেপ্টেম্বর) বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে চুরি হয় একটি ডিসকভার মডেলের মোটর সাইকেল। সেই চুরির রেশ কাটতে না কাটতেই বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর) রাত আটটায় আবারো বিয়ানীবাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের সামনে থেকে চুরি হয় আরেকটি মোটর সাইকেল।

যার নম্বর সিলেট-হ ১৪-০৭৩৮। চুরি হওয়া মোটর সাইকেলের মালিক বিয়ানীবাজার উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি আবুল হুসেন খসরু। এর আগে ব্যবসায়ী হাফিজ উদ্দিনের ডিস্কভার মোটর সাইকেল জামান প্লাজা ও ব্যবসায়ী আকবর হোসেনের পেসন প্রো মোটর সাইকেলটি সুপাতলাস্থ ওসমানী স্টেডিয়াম থেকে চুরি গেলেও এগুলোর কোন হদিস মেলে নি৷

Sharing is caring!

Loading...
Open