সরকারের অভিন্ন নীতিমালা প্রত্যাখ্যান করেছেন শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা


শিক্ষক নিয়োগ ও পদোন্নতিতে সরকারের প্রস্তাবিত অভিন্ন নীতিমালা প্রত্যাখ্যান করেছেন সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা।

শিক্ষক সমিতি’র ব্যানারে বৃহস্পতিবার দুপুরে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার ভবনের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধনে এই নীতিমালা প্রত্যাখ্যানের ঘোষণা দিয়েছেন তারা।

শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. এস এম সাইফুল ইসলাম বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসন ক্ষুন্ন করে মন্ত্রণালয় কোন নীতিমালা জারি করলে আমরা তা মেনে নিব না। আমরা এমন নীতিমালা প্রত্যাখ্যান করবো।”

“ইউজিসি ও শিক্ষক ফেডারেশনের খসড়া নীতিমালা শিক্ষামন্ত্রণালয়ে চূড়ান্ত হয়ে গেলেও চূড়ান্ত নীতিমালায় কি কি আছে, কোন পরিবর্তন আসছে কিনা তা আমরা এখনও জানতে পারি নি।”

গত ২৫ আগস্ট শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনির সভাপতিত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য অভিন্ন নিয়োগ ও পদোন্নতির নীতিমালা চূড়ান্ত করেছে ইউজিসি। এই নীতিমালা প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন পেলেই প্রজ্ঞাপন আকারে জারি হবে বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবরে এসেছে।

জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ প্রণয়নের পর শিক্ষকদের বেতনকাঠামো নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুসারে প্রশাসনের সিনিয়র কয়েকজন সচিবের সাথে কয়েক দফা আলোচনায় বসে শিক্ষক নিয়োগ ও পদোন্নতি সংক্রান্ত একটি অভিন্ন খসড়া নীতিমালা তৈরি করেছিল ইউজিসি।

সাইফুল ইসলাম বলেন, “চূড়ান্ত নীতিমালা যদি ইউজিসি ও শিক্ষক ফেডারেশনের খসড়া নীতিমালার মতো হয় এবং তা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশান বহাল রেখে জারি হয় তবে তা মানতে আমাদের কোন সমস্যা নেই।”

“কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসন ক্ষুন্ন করে মন্ত্রণালয় কোন নীতিমালা জারি করলে আমরা মানব না; কারণ তা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সাংঘর্ষিক।”

সাইফুল ইসলাম বলেন, “প্রত্যেকটি বিশ্ববিদ্যালয় নিজস্ব নীতিমালা প্রণয়ন করে গঠিত হয়েছে। এগুলো বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বতন্ত্র্য বৈশিষ্ট্য। আমরা চাই সেটার বাস্তবায়ন হোক।”

মানববন্ধনে শিক্ষক সমিতির অন্যান্য নেতাসহ বিভিন্ন বিভাগের দুইশতাধিক শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open