গোয়াইনঘাটে আপন দু’ভাইয়ের চোখ নষ্ট করার দায়ে ১০ জনের যাবজ্জীবন

প্রতিকী ছবি

সিলেটের গোয়াইনঘাটে দুই সহোদরের চোখে এসিড (চুন) নিক্ষেপ করার দায়েরকৃত মামলায় ১০ আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত।রায়ের পাশাপাশি তাদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরো ৬ মাসের সশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়।রবিবার দুপুরে সিলেটের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক কে এম রাশেদুজ্জামান রাজা চাঞ্চল্যকর এ রায় ঘোষনা

করেন।দন্ডপ্রাপ্ত আসামীরা হচ্ছে- গোয়াইনঘাট থানার উত্তর রাউথগ্রামের মৃত ইয়াছিন আলীর পুত্র আব্দুস ছালাম (৪৫), একই

থানার দক্ষিণ রাউথগ্রামের আব্দুল মতলিবের পুত্র মো: নূরুল মিয়া উরফে নকুল ইসলাম (৩৫), একই এলাকার আব্দুস সামাদের পুত্র আলতাব মিয়া (৩৫), উত্তর রাউথগ্রামের আব্দুস ছালামের পুত্র রুবেল মিয়া (২০), দক্ষিণ রাউথগ্রামের মৃত আব্দুল মতলিবের পুত্র

সামছুল ইসলাম উরফে সাদ্দাম (২৫), উত্তর রাউথগ্রামের আব্দুল গফুরের পুত্র আব্দুর রহিম (৩৮), দক্ষিণ রাউথগ্রামের মৃত আব্দুর করিমের পুত্র আয়াত উদ্দিন (৩২), একই এলাকার মৃত ফরমান আলীর পুত্র উরফে ফেরাইর পুত্র মাসুক মিয়া (৩০), মৃত আছদ আলী উরফে আছইর পুত্র মোহাম্মদ আলী (৪৫) ও উত্তর রাউথগ্রামের মৃত ইয়াছিন আলী উরফে ঘকুর পুত্র আব্দুর রশিদ (৩৮)।

রবিবার রায় ঘোষনার সময় সাজাপ্রাপ্ত সকল আসামী আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত থাকলেও অপর সাজাপ্রাপ্ত আসামী রুবেল মিয়া পলাতক ছিলো।মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা গেছে, ২০১৩ সালের ২৬ মার্চ সকাল ৭ টার দিকে জায়গা সংক্রান্ত, গণধর্ষণ ও মামলা-মোকদ্দমার জের ধরে গোয়াইনঘাট উপজেলার উত্তর রাউথগ্রামের মৃত আব্দুল জব্বারের পুত্র আজির উদ্দিন (৫০)

ও আলা উদ্দিন (৪০) এর বসত ঘরে প্রবেশ করে উক্ত আসামীরা দলবদ্ধ হয়ে তাদের উপর হামলা চালায়। এসময় আজির উদ্দিন ও আলা উদ্দিনকে আসামীরা উপর্যুপরি মারধর করে এবং দুই ভাইয়ের উভয় চোখে দুবর্ত্তরা দাহ্য পদার্থ (চুন) লাগিয়ে তাদের নিজ নিজ চোখগুলো চিরতরে নষ্ট করে দেয়। পরে তাদেরকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করেন স্থানীয়রা।

এ ঘটনায় আহতদের ভাই মো: জমির উদ্দিন বাদি হয়ে ২৮ জনকে আসামী করে গোয়াইনঘাট থানায় এসিড অপরাধ দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। যার নং-৪ (০৩-০৪-২০১৩)।দীর্ঘ তদন্ত শেষে একই বছরের ২৫ ডিসেম্বর গোয়াইনঘাট থানার এসআই মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান ১০ আসামীকে অভিযুক্ত করে আদালতে এ মামলার চার্জশিট (অভিযোগপত্র)দাখিল করেন এবং ২০১৪ সালের ৪ সেপ্টেম্বর থেকে আদালত এ মামলার বিচার কায্যক্রম শুরু করেন। দীর্ঘ শুনানী ও ১৭ সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত আসামী আব্দুস ছালাম, নুরুল মিয়া উরফে নকুল ইসলাম, আলতাব মিয়া, রুবেল মিয়া, সামছুল ইসলাম উরফে সাদ্দাম,

আব্দুর রহিম, আয়াত উদ্দিন, মাসুক মিয়া, মোহাম্মদ আলী ও আব্দুর রশিদকে এসিড অপরাধ দমন আইন/২০০২ এর ৫ (ক) ৭ ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে তাদের প্রত্যেককে রবিবার উল্লেখিত রায় ঘোষনা করা হয়।রাষ্ট্রপক্ষের পিপি এডভোকেট শামসুল ইসলাম ও আসামীপক্ষের এডভোকেট মো: ইলিয়াছ হোসেন মামলাটি পরিচালনা করেন।বিজ্ঞপ্তি

Sharing is caring!

Loading...
Open