সিলেট কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের শিক্ষার্থী খুন : দায় স্বীকার তায়েফের

নিজস্ব প্রতিবেদক :: সিলেটের দক্ষিণ সুরমার আলমপুরের কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের শিক্ষার্থী তানভির হোসেন তুহিন (১৮) হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে আবু তায়েফ (১৮)।

বৃহস্পতিবার দুপুরে তায়েফকে সিলেট মহানগর হাকিম সাইফুর রহমানের অদালতে হাজির করলে সে হত্যার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করে বলে জানান মোগলাবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আখতার হোসেন। এরপর তায়েফকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

বুধবার রাতেই দক্ষিণ সুরমা উপজেলার কদমতলী এলাকার আব্দুল আলিমের ছেলে আবু তায়েফকে আটক করে পুলিশ। ওই রাতেই নিহত তুহিনের চাচা নাজিম উদ্দিন বাদী হয়ে তায়েফসহ ১০ জনকে আসামী করে মামলা করেন। ওই মামলায় তায়েফকে গ্রেপ্তার দেখায় পুলিশ।

বুধবার দুপুরে কথাকাটাকাটির জেরে সহপাঠিদের হাতে খুন হন তানভীর হোসেন তায়েফ।

জানা যায়, বুধবার সকালে কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের একটি কোর্সের শিক্ষার্থী তুহিনের জুতা ক্লাসের সামনে থেকে হারিয়ে যায়। এনিয়ে সহপাঠী কামরানের সাথে তর্কতর্কি হয় তার। তর্কাতর্কির জেরে দুপুরে দলবল নিয়ে এসে তুহিনকে মারধর করে কামরান। এসময় কাঠের টুকরো দিয়ে তুহিনের মাথায় আঘাত করে তারা। আহত অবস্থায় তাকে প্রথমে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি ঘটলে দুপুরে তাকে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়। বিকেলে ঢাকায় যাওয়ার পথে সে মারা যায়। তুহিন গোলাপগঞ্জ উপজেলার হেতিমগঞ্জের কোনাচর দক্ষিণভাগ পলিকাপন গ্রামের মানিক মিয়ার পুত্র।

এ ঘটনায় বুধবার রাতেই নিহতের চাচা নাজিম উদ্দিন বাদী হয়ে কামরান, আবু তায়েফসহ ১০ জনের নাম উল্লেখ করে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

ওসি আখতার হোসেন বলেন, মামলার অন্যান্য আসামীদের গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close