জোহা দিবসকে ‘শিক্ষকদিবস’ঘোষণার দাবি জাফর ইকবালের

শাবি প্রতিনিধি:: শহিদ শামসুজ্জোহা দিবসকে ‘শিক্ষক দিবস’ হিসেবে ঘোষণার দাবি জানিয়েছেন সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরোত্তর অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল ।

তিনি বলেন, “আমাদের দেশে শিক্ষকদের জন্য যদি নির্দিষ্ট কোন দিন রাখতে হয়, সবচেয়ে পারফেক্ট তিন হবে আজকেই এই দিন। তবে এটা একদিনের দাবিতেই হয়ে যাবে না। এর জন্য লেগে থাকতে হবে। চেষ্টা করতে হবে।”

সোমবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) ‘জোহা দিবস’ দিবস উপলক্ষে শাখা সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের উদযাপন কমিটির উদ্যোগে আয়োজিত সমাবেশে এমন বক্তব্য দেন জাফর ইকবাল।

আয়োজক শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, “শিক্ষক দিবসের জন্য তোমরা দাবি করে যাচ্ছো, মিছিল-মিটিং করে যাচ্ছো, কিন্তু এটা কাল বাস্তবায়ন হয়ে যাবে না। বাংলাদেশের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাথে যোগাযোগ করো, যেন তারাও দাবি করে। কারণ ছাত্র-ছাত্রীরা চাইলে সেটা পারবে। শিক্ষক দিবসের জন্য এরচেয়ে পারফেক্ট দিন আর হতে পারে না।”

শহিদ শামসুজ্জোহা স্মরণ কমিটির আয়োজনে সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে র‌্যালি বের করে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার ভবনের নিচে গিয়ে সমাবেশে মিলিত হয়।

কমিটির আহ্বায়ক নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মো. মইনুদ্দিন মিয়ার সভাপতিত্বে সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. আব্দুল আওয়াল বিশ্বাস, ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ড. হিমাদ্রী শেখর রায়, বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সরকার সোহেল রানা, শাখা সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের আহ্বায়ক প্রসেনজিৎ রুদ্র, সাধারণ সম্পাদক নাজিরুল আজম বিশ্বাস, জাতীয় ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক রুপেল চাকমা প্রমুখ।

এসময় শহিদ শামসুজ্জোহার স্মরণে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সম্মুখে স্থাপিত অস্থায়ী বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ বিশ^বিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরাও এসময় ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

১৯৬৯ সালের ১৮ই ফেব্রæয়ারি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের শিক্ষক ও প্রক্টর ড. শামসুজ্জোহা তৎকালীন পাকিস্তান সরকারের পুলিশের গুলি ও বেয়নটের আঘাতে শহীদ হন।

Sharing is caring!

Loading...
Open