বালাগঞ্জে পালিয়েও রক্ষা পেল না দুই ধর্ষক

ওসমানীনগর প্রতিনিধি :: বালাগঞ্জে মাদরাসা ছাত্রীকে গণধর্ষণের পর পালিয়ে থাকা দুই ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার (২৪ নভেম্বর) রাত আটটার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার দেওয়ান বাজার ইউনিয়নের জামালপুর গ্রাম আব্দুল আহাদ ও আযইকে গ্রেফতার করে বালাগঞ্জ থানার পুলিশ। গ্রেফতারের পর রাত নয়টার দিকে তাদেরকে বালাগঞ্জ থানায় নেয়া হয়।

পুলিশের হাতে গ্রেফতার আব্দুল আহাদ (২৫) উপজেলার শিওরখাল গ্রামের আব্দুল করিম তালুকদারের ছেলে এবং আযই (৩২) একই গ্রামের ইউপি সদস্য আইয়ুব আলীর ছেলে। শুক্রবার রাতে ভিকটিমের পিতা বাদী হয়ে বালাগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন, মামলা নং- ৮। মামলায় আব্দুল আহাদ ও আযইসহ অজ্ঞাত আরও ৪ জনকে অভিযুক্ত করা হয়।

বালাগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ গাজী আতাউর রহমান বলেন, ভিকটিমের পিতার দায়ের করা মামলায় এজাহারভুক্ত দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে, অন্যান্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

এদিকে গণধর্ষণের ঘটনার প্রতিবাদে ক্ষুব্দ এলাকাবাসী অব্যাহত প্রতিবাদে কর্মসুচিতে উত্তাল হয়ে ওঠেছে পুরো উপজেলা। শুক্রবার রাত আটটার দিকে স্থানীয় মাদরাসা বাজার যুবসমাজের উদ্যোগে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্টিত হয়। এতে সর্বদলীয় জনতা উপস্থিত হয়ে ঘটনার সাথে জড়িতদের শাস্তির দাবি জানান।

বৃহস্পতিবার (২২ নভেম্বর) রাত আটটার দিকে নিজ বাড়িতে গণধর্ষণের শিকার হয় স্থানীয় মাদরাসার ৬ষ্ট শ্রেণীর ছাত্রী উপজেলার দেওয়ান বাজার ইউনিয়নের শিওরখাল গ্রামের এক কিশোরী (১৫)। ওই দিন রাত ১১টার দিকে তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করা হয়।

ভিকটিমের বরাত দিয়ে পরিবারের সদস্যরা জানান, সে (ভিকটিম) অভিযুক্তদের চিনেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার সাড়ে ৭টার দিকে নিজ ঘরের বারান্দা থেকে ভিকটিম ওই কিশোরীকে জোর করে তুলে নিয়ে মুখ বেঁধে পাশবিক নির্যাতন করা হয়। প্রায় ঘন্টাব্যাপি নির্যাতনে রক্তাক্ত অবস্থায় সে অজ্ঞান হয়ে পড়ে।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close