কোটা বাতিল অনুমোদন

সুরমা টাইমস ডেস্ক:: সরকারি চাকরিতে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির পদে নিয়োগে কোটা থাকবে না। মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ হবে। গতকাল বুধবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এর অনুমোদন দেওয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। শিক্ষার্থীরা কোটাব্যবস্থায় পরিবর্তন আনার দাবিতে চলতি বছর জোরালো আন্দোলন করে আসছিল।

পরে মন্ত্রিপরিষদসচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের জানান, কোটা বিষয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কমিটির সুপারিশের ওপর আলোচনা হয়। যেখানে ৯-১৩তম গ্রেড বা প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির পদে নিয়োগ মেধার ভিত্তিতে দেওয়া, কোটা বাতিল ও কোটা বাতিলের ফলে অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর বিষয়ে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেওয়ার সুপারিশ ছিল। বৈঠকে আলোচনার মাধ্যমে ওই তিনটি সুপারিশই গ্রহণ করা হয়। ফলে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির পদে আর কোটার সুযোগ থাকল না, বরং মেধার ভিত্তিতেই নিয়োগ দেওয়া হবে। তবে অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর ক্ষেত্রে কখনো প্রয়োজন পড়লে তখন করণীয় ঠিক করা হবে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে সচিব বলেন, দু-তিন দিনের মধ্যেই কোটাসংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে। তবে এরই মধ্যে ৪০তম বিসিএস বা প্রযোজ্য ক্ষেত্রে যেসব নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে বা আবেদনপ্রক্রিয়া চলমান আছে, সে ক্ষেত্রে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির শর্ত কার্যকর হবে। ওই বিজ্ঞপ্তিতেও সরকারের সিদ্ধান্ত কার্যকর করার শর্ত দেওয়া আছে। বৈঠকের বরাত দিয়ে সচিব জানান, তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির চাকরির ক্ষেত্রে আগের মতো বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি বহাল থাকবে।

এদিকে বৈঠকে দু-তিনজন মন্ত্রী কোটা বাতিলের বিষয়ে আপত্তি জানান বলে একটি সূত্র জানিয়েছে। তাঁরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, প্রতিবন্ধী ও ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী কোটা বহাল রাখার পক্ষে মত দেন। বৈঠক শেষে সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তাঁর আপত্তির কথা স্বীকার করেন। মেনন বলেন, সংবিধান ও আইন অনুযায়ী প্রতিবন্ধী কোটা বহাল রাখতে হবে। নয়তো এটি প্রতিবন্ধী আইনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক হবে।

বৈঠকে তিনটি আইনের খসড়া অনুমোদন পায়। তবে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের খসড়া ওঠেনি। বিষয়টি অনির্ধারিতভাবে বৈঠকে উঠতে পারে বলে দুই-তিন ধরে গুঞ্জন চললেও গতকাল এ বিষয়ে কোনো আলোচনা হয়নি বলে ব্রিফিংয়ে জানানো হয়েছে। এ ছাড়া বৈঠকে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে অংশ নিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুটি আন্তর্জাতিক অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্তিতে অভিনন্দন ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়রের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়।

বৈঠকের প্রথমেই কাস্টমস আইনের খসড়ার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়ে সচিব বলেন, ২০১৪ সাল থেকে এ আইনের খসড়া নিয়ে কাজ চলছিল। এ ছাড়া স্বর্ণ নীতিমালা আইন অনুমোদন দেওয়া হয়। এ বিষয়ে জানানো হয়, এখন থেকে বাংলাদেশ ব্যাংক সোনার বার আমদানির ক্ষেত্রে ডিলার নিয়োগ দেবে। নিয়োগপ্রাপ্ত ডিলাররা অলংকার প্রস্তুতকারীদের মধ্যে ওই বার সরবরাহ করবে। প্রস্তুতকারীরা তা দিয়ে অলংকার প্রস্তুত করে দেশের বাজারের পাশাপাশি বিদেশেও তা রপ্তানি করবে। শুধু স্বর্ণ বা স্বর্ণের সঙ্গে অন্য যেকোনো ধাতু সংযোজনের মাধ্যমেও এসব অলংকার প্রস্তুত হতে পারে। থাকতে হবে হলমার্ক স্টিকার। বৈঠকে জাতীয় পরিবেশ নীতিমালা-২০১৮ অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়ে ব্রিফিংয়ে বলা হয়, ১৯৯২ সালে প্রথম এমন একটি নীতিমালা হয়েছিল। ২৬ বছর পর এটি অনেক শক্তিশালী করা হয়েছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open