মাসদার হোসেন মামলা: ব্যারিস্টার আমীর ও কামাল প্রত্যাহার

মাসদার হোসেন মামলা থেকে জ্যেষ্ঠ আইনজীবী আমীর-উল ইসলাম ও ড. কামাল হোসেনের ওকালাতনামা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ জুডিসিয়াল সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন।

বুধবার অ্যাসোসিয়েশনের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে গণ মাধ্যমে পাঠনো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এস এম কুদ্দুস জামান ও ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বিকাশ কুমার সাহা স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বুধবার আপিল বিভাগে শুনানিকালে আমীর-উল ইসলাম অধস্তন আদালতের বিচারকদের স্বার্থবিরোধী বক্তব্য দিলে তা আদালত তা গ্রহণ না করায় জুডিসিয়াল সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন অসন্তোষ প্রকাশ করছে।

অধস্তন বিচারকদের চাকরির বিধিমালা নিয়ে এই দুই আইনজীবী সরকারের অবস্থানের কঠোর বিরোধিতা করে আসছিলেন। দীর্ঘ শুনানির পর আইন মন্ত্রণালয় থেকে যে বিধিমালা পাঠানো হয়েছে তা সুপ্রিম কোর্ট গ্রহণ করেছে। তবে এই দুই আইনজীবী দাবি করেছেন, এই বিধিমালা মাসদার হোসেন মামলার পরিপন্থি আর এর ফলে বিচারিক আদালতে সরকারের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠিত হবে।

বুধবার এই বিধিমালার ওপর আপিল বিভাগে শুনানিতে আমীর উল ইসলাম ও ড. কামাল হোসেন দুই জনই এই বিধিমালার সমালোচনা করেন।

এর আগে সরকার এই বিধিমালা আপিল বিভাগে জমা দেয়ার পর এই দুই আইনজীবীসহ ছয় আইনজীবী বিবৃতি দিয়ে এর সমালোচনা করেছেন।

জুডিসিয়াল সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ওই বিবৃতি প্রদানকারী ছয় আইনজীবী মাসদার হোসেন মামলাকে রাজনীতি করণের অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছেন।

এছাড়া যেহেতু বিধিমালা আপিলবিভাগ গ্রহণ করেছে এবং তা নিয়ে নিম্ন আদালতের বিচারকদের অসন্তোষ নেই, তাই বিবৃতি প্রদানকারী আইনজীবীদের এ নিয়ে সমালোচনা না করতে অনুরোধ করা হয় জুডিসিয়াল সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close