প্রয়োজনে এক বেলা কম খেয়ে রোহিঙ্গাদের খাওয়াব-প্রধানমন্ত্রী

সুুরমা টাইমস ডেস্ক:: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রোহিঙ্গাদের মানবিক কারণে আমরা আশ্রয় দিয়েছি। তাদের জন্য আমরা আমাদের সামর্থ অনুযায়ী সব কিছু করব। প্রয়োজনে এক বেলা কম খেয়ে তাদের খাওয়াব। সেইসঙ্গে তাদের আত্মসম্মান অক্ষুণ্ন রেখে ফেরত পাঠানোরও চেষ্টা চলবে।

শনিবার সকালে লন্ডন থেকে দেশে ফিরে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।
এর আগে সকাল ৯টা ২৫ মিনিটে তিনি হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে নামেন। গত ১৭ই সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে নিউইয়র্ক যান তিনি। অধিবেশন শেষে লন্ডন এসে পিত্তথলীর অপারেশন করান। এরপর চিকিৎসকদের পরামর্শে সেখানে কয়েক দিন বিশ্রাম নিয়ে নির্ধারিত সময়ের পাঁচদিন পর দেশে ফিরলেন তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে পাঠানোর ব্যাপারেও কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, তারা যাতে স্বাস্থ্যসম্মতভাবে থাকতে পারে, শিশুরা লেখাপড়া করতে পারে তারও ব্যবস্থা করতে হবে। এসব ব্যাপারে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর সঙ্গে কথা হয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।
তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ায় বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বেড়েছে। সেটা আমাদের ধরে রাখতে হবে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি ওখানে (দেশের বাইরে) থাকলেও দেশের সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছি। রোহিঙ্গাদের খোঁজখবর নিয়েছি। এখন তো সবকিছু ডিজিটাল। তাই ওখান থেকেই কাজকর্মও সেরেছি।’
প্রধানমন্ত্রী তার পিত্তথলীর অপরেশন সফল হওয়ায় আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করেন এবং সুস্থ শরীরে যাতে দেশ পরিচালনা করতে পারেন সেজন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চান।
পদ্মা সেতু সম্পর্কে তিনি বলেন, বাংলাদেশকে হেয় করা হয়েছে। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে নানা প্রচারণা চালানো হয়েছে। কিন্তু আমাদের আত্মবিশ্বাস ছিল। আমরা চ্যালেঞ্জ দিয়েছি বিশ্বব্যাংকে। আমরা মানুষের জন্য রাজনীতি করি, দেশের জন্য রাজনীতি করি। আল্লাহর রহমতে তারা কোনো প্রমাণ দিতে পারেনি।
বাংলাদেশ বিশ্বে একটি মর্যাদা নিয়ে থাকবে সে চেষ্টা সবসময় থাকবে। এক সময় বাংলাদেশের নাম শুনলে বিদেশিরা বলতো ও বাংলাদেশ। বিভিন্ন দুর্যোগ ও দারিদ্র্যের দেশ ছিল বাংলাদেশ। সে অবস্থান থেকে বাংলাদেশ এখন বেরিয়ে এসেছে।
আগামীতে দেশ যাতে বিশ্বের কাছে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারে সেজন্য সকলকে এক সঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

Sharing is caring!

Loading...
Open