উত্তর কোরিয়াতে বিয়ে এবং মৃত্যুতে নিষেধাজ্ঞা!

4আন্তর্জাতিক ডেস্ক,: অদ্ভুত সব নিয়মজারির জন্য বিশ্ব নেতাদের মধ্যে বেশ পরিচিত উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন। ৩৬ বছর পর দেশটির শাসক দল ওয়াকার্স পার্টি আয়োজন করতে যাচ্ছে দলীয় কংগ্রেস। সেই কংগ্রেসকে সামনে রেখে শুরু হয়েছে ব্যাপক তোড়-জোর। এর মধ্যে নতুন ফতোয়া জারি করলেন কিম উন। কংগ্রেস অনুষ্ঠিত হওয়ার আগে বিয়ে করতে পারবে না উত্তর কোরীয়বাসী। সেই সঙ্গে মৃত্যুতেও রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। অর্থাৎ কেউ মারা গেলেও তার অন্তোষ্টি ক্রিয়া বন্ধ রাখা হবে। এমনকী দেশের বাইরে যাওয়া-আসাতে রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। দেশের বাইরে আপাতত যেতে পারবেন না এবং বিদেশ থেকে দেশেও ঢুকতে পারবে না উত্তর কোরীয়রা।

এর আগে ১৯৮০ সালে সর্বশেষ উত্তর কোরিয়ার শাসক দল ওয়ার্কার্স পার্টির অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। কংগ্রেসের সেই অধিবেশনেই কিম ইল সুং-য়ের থেকে ক্ষমতা হস্তান্তরিত হয়ে দেশের সর্বোচ্চ ক্ষমতার অধিকারী হন বর্তমান শাসক কিমের বাবা কিম জং ইল। বাবার মতোই এই অধিবেশনের মাধ্যমে নিজের ক্ষমতা আরো বাড়ানোর সুযোগ নিতে চান ৩৩ বছরের কিম জং উন। অধিবেশনের প্রস্তুতিতে বা তা চলাকালীন যাতে কোনও রকম ব্যাঘাত না ঘটে সে জন্য সব রকমের প্রচেষ্টাই শুরু করেছেন তিনি। এর অংশ হিসেবেই জারি করা হয়েছে এসব নিষেধাজ্ঞা।

কংগ্রেসেই উত্তর কোরিয়াকে পরমাণু ক্ষমতাসম্পন্ন রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণা করার মনোবাসনা রয়েছে কিমের। এমনকী, দেশের অগ্রগতি নিয়ে তার ভবিষ্যৎ ভাবনাও জানাবেন। সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর নেতার ইচ্ছায় বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তার ঘেরাটোপ। শুধু তাই নয়, যখনতখন ঘরে ঢুকে খাবার তল্লাশি করা নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। আগামী শুক্রবার শুরু হয়ে এই কংগ্রেসের অধিবেশন চলবে পাঁচ দিন ধরে।

এরপর অধিবেশনের পরের ৭০ দিন ধরে চলবে দেশবাসীর আনুগত্যের ‘পরীক্ষা’। শাসক দল তথা কিম জং উনের প্রতি আনুগত্যা দেখাতে এই সময় উৎপাদন বাড়াতে অতিরিক্ত সময় ধরে কাজ করবেন তারা।

Sharing is caring!

Loading...
Open

Close