ডিআইজি মিজানের অভিযোগ তদন্তে কমিটি করেছে, দুদক

দুদকে জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি ডিআইজি মিজানুর রহমান (ফাইল ছবি)

অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগের মুখে থাকা ডিআইজি মিজানুর রহমান দুদকের অনুসন্ধান কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ নেওয়ার যে অভিযোগ তুলেছেন, তার তদন্তে কমিটি করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন।

বিতর্কিত ডিআইজি মিজান রোববার একটি বেসরকারি টেলিভিশনে দাবি করেন, তার বিরুদ্ধে অভিযোগের অনুসন্ধান কর্মকর্তা দুদকের পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছির ৪০ লাখ টাকা ঘুষ নেন।

টেলিভিশনে প্রচারিত ওই ‘বিশেষ সংবাদে’ ঘুষ লেনদেনের সপক্ষে ডিআইজি মিজান ও এনামুল বাছিরের মোবাইল কথোপকথনের কয়েকটি অডিও ক্লিপও শোনানো হয়।এই অভিযোগ ওঠার পর রোববারই দুদক সচিব মুহাম্মদ দিলোয়ার বখতকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানান কমিশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রনব কুমার ভট্টাচার্য্য।

কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন দুদকের মহাপরিচালক (প্রশাসন) সাঈদ মাহবুব খান এবং মহাপরিচালক (লিগ্যাল) মফিজুল ইসলাম ভূইয়া।

প্রনব বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে (সোমবারের মধ্যে) এই বিষয়ে কমিশনকে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে তদন্ত কমিটিকে।”

দুদকের পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছির দাবি করেছেন, তিনি কোনো ঘুষ নেননি।

গত বছরের ৩ মে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ডিআইজি মিজানকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক। প্রথমে অনুসন্ধান কর্মকর্তা ছিলেন দুদকের উপ-পরিচালক ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী; পরে এই দায়িত্ব পান এনামুল।

Sharing is caring!

Loading...
Open