যত্রতত্র মোটরসাইকেল পার্কিং, নির্ধারিত স্ট্যান্ড দাবি চালকদের


তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ বৃহত্তর সুনামগঞ্জের বেশ কয়েকটি উপজেলায় ভাড়ায় চালিত মোটর সাইকেলের বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে। পাশাপাশি এ পেশায় নেমে জেলার কয়েক হাজার লোকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে।

বেকার তরুণেরা খুঁজে পেয়েছে কর্মের সন্ধান, পেয়েছে আয়ের নতুন উৎস।
এতে করে একটি পরিবার পেয়েছে তার নির্ভরশীলতা।

জেলার তাহিরপুর উপেজেলায় প্রায় হাজার খানেক পেশাদার মোটরসাইকেল চালক রয়েছে। এর মধ্যে বাণিজ্যিক কেন্দ্র বাদাঘাট বাজার ও তার আশেপাশে রয়েছে প্রায় ৫০০-৭০০ চালকের অবস্থান।

সম্প্রতি এ পেশার লোকদের সবচেয়ে বড় সমস্যার নাম নির্ধারিত স্ট্যান্ড।
যা না থাকার দরুন, বাণিজ্যিক কেন্দ্রের বিভিন্ন দোকানের সামনে করতে হচ্ছে পার্কিং।

বাজারে অনেক সময় অটোরিকশা, মোটরসাইকেল, রিকশা, পিকআপ ভ্যান সব এক সাথে মিলে ছোট আকারে যানজটের সৃষ্টি হয়, এতে করে সাধারণের চলাচলে পোহাতে হয় ভোগান্তি, নষ্ট হয় মূল্যবান সময়।

যত্রতত্র পার্কিং ও বিশৃঙ্খল যান চলাচলের কারণে ঘটছে দুর্ঘটনা।
কেড়ে নেয়া হচ্ছে মূল্যবান প্রাণ।

বাদাঘাটের পেশাদার মোটরসাইকেল চালক আরিফুল, মিষ্টু মিয়া, শহিদ মিয়া, জাকির হোসেন সহ বেশ কয়েকজনের সহিত কথা বলে জানা গেছে, মোটরসাইকেল ভাড়ায় নেমে তাদের দিনকাল ভাল-ই কাটছে, কিন্তু নির্ধারিত স্ট্যান্ড না থাকায় অনিচ্ছা স্বত্বে বাজারের যত্রতত্র পার্কিং করতে হয় তাদের। এতে করে অনেক সময় তাদের সহিত বিভিন্ন দোকান মালিকদের উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। কিন্তু কিছু করার থাকেনা অবশেষে। অচিরেই এ অবস্থার পরিত্রাণ চাই ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেল চালকেরা।

Sharing is caring!

Loading...
Open