রহিমুল্লাহকে রাষ্ট্রপতির চিঠি

বছর পাঁচ-ছয় আগের কথা। একদিন দুপুরে অফিসে রিসিপশন থেকে ফোনে জানাল কক্সবাজার থেকে রহিমুল্লাহ নামে এক কৃষক এসেছেন আমার সঙ্গে দেখা করতে। দুপুরে রহিমুল্লাহকে নিয়ে খেতে বসলাম। বললাম, বলেন আমার কাছে কেন আসছেন? রহিমুল্লাহ খেতে খেতে শোনালেন তার জীবনের গল্প। সেই আশির দশকে বিটিভিতে ‘মাটি ও মানুষ’ অনুষ্ঠানে দেখিয়েছিলাম ছোট্ট ছোট্ট পেঁপে গাছের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত গাছভর্তি পেঁপে ফলে এমন জাতের গাছের প্রতিবেদন।

তা দেখে শৈশবেই বাবাকে ধরেছিলেন এমন জাতের পেঁপে গাছ এনে দিতে। ‘মাটি ও মানুষ’ দেখে দেখে কৃষির প্রতি তার ভালোবাসা জন্মে। এরপর জীবনের প্রয়োজনে পাড়ি জমান মধ্যপ্রাচ্যে। সেখান থেকে স্যাটেলাইটের কল্যাণে দেখার সুযোগ পান চ্যানেল আইয়ের ‘হৃদয়ে মাটি ও মানুষ’।

মধ্যপ্রাচ্যের কঠিন জীবনযাপনের মধ্যে থেকেও মেসের একমাত্র বিনোদন তার এ কৃষি অনুষ্ঠান। বাউকুল চাষে বিভিন্ন কৃষকের সাফল্যের প্রতিবেদন দেখে তিনি দেশে ফেরার সিদ্ধান্ত নেন। কষ্টে অর্জিত অর্থ নিয়ে দেশে ফিরে এসে দুই বছর ধরে কুল চাষের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু কোনো সাফল্য পাচ্ছেন না। টাকাপয়সা যা বিদেশ থেকে এনেছিলেন সব শেষ। আমি সব শুনে বললাম, ভাত খান, ভাত খাওয়া শেষ করে থানায় গিয়ে আমার নামে মামলা করে দেন। এ কথা শুনে শতকষ্টে মলিন রহিমুল্লাহও হেসে দিলেন, কী বলেন স্যার! আমি তো আসছি অন্য কারণে। জানতে চাইলাম, কী কারণে? বললেন, আমার বিশ্বাস, একবার যদি, একবার যদি আপনি আমার জমিতে গিয়ে দাঁড়ান, তাহলেই ফলন ভালো হবে ইনশা আল্লাহ।

এবার আমার হাসির পালা। বললাম, রহিমুল্লাহ, কৃষি সাধনার বিষয়। কৃষিতে সাফল্য আসে সত্য। কিন্তু এর জন্য প্রয়োজন কৃষির প্রতি সত্যিকারের প্রেম। এতে লেগে থাকতে হয়। তা না হলে সাফল্য আসে না। আপনি দুই বছরে বহুবার মধ্যপ্রাচ্যে যাওয়া-আসার মধ্যে ছিলেন।

নিজে সম্পৃক্ত না থাকলে, অন্যকে দিয়ে নিজের কাক্সিক্ষত ফলন পাওয়া সম্ভব নয়।

তখনকার মতো রহিমুল্লাহকে বুঝিয়ে শুনিয়ে পাঠিয়ে দিলাম।

মাস তিনেক পর তার বাগানটি দেখতে গেলাম। বিশাল বাগান। ঘুরে দেখে রহিমুল্লাহকে বললাম, নিজ মাটিকে ভালোবেসে, মাটির টানে আপনি দেশে ফিরে এসে কৃষি কাজে নিয়োজিত হয়েছেন, আপনার এ সততার সঙ্গে একাগ্রতা যুক্ত থাকলে আমার বিশ্বাস আল্লাহ আপনাকে ফেরাবেন না। বিদায় নিয়ে রহিমুল্লাহর বাগানের সামনে থেকে গাড়িতে উঠে রওনা করলাম। যেতে যেতে গাড়ির সাইড ভিউ মিররে লক্ষ্য করলাম রহিমুল্লাহ দৌড়ে দৌড়ে আসছেন। আমি গাড়ি থামাতে বললাম।

গাড়ি থামলে রহিমুল্লাহও থেমে যান। আবার চলতে শুরু করলেই পেছন পেছন দৌড়ান রহিমুল্লাহ। আমি রহিমুল্লাহকে ডাকলাম, ব্যাপার কী? দৌড়াচ্ছেন কেন? তিনি পকেট থেকে দুটি কাগজ বের করলেন। একটি হলো বিদেশে কাজ করার অনুমতিপত্র (আকামা) আর একটি হচ্ছে বিমান টিকিট। তিনি বিমানের টিকিট টান দিয়ে ছিঁড়ে ফেললেন। তার চোখে অন্যরকম এক দৃঢ়তা দেখেছিলাম। এখান থেকেই শুরু রহিমুল্লাহর কৃষিতে সাফল্য যাত্রা।

ব্যক্তি হিসেবে রহিমুল্লাহ বেশ সৎ। তাকে বেশ কয়েকবার সুদহীন টাকা ঋণ দিয়েছি। প্রতিবারই তিনি সততার সঙ্গে টাকা ফেরত দিয়েছেন সময়মতো। শুধু বাউকুল নয়, পেঁপে, কলা চাষ করেও তিনি বেশ ভালোই টাকাপয়সা পাচ্ছেন। করেছেন মাছের খামার। মহল্লার বাজারে দিয়েছেন সার-বীজের দোকান। প্রতি বছরই কুলের মৌসুমে আমি তার কাছ থেকে কিছু পরিমাণ কুল কিনি। উদ্দেশ্য, রহিমুল্লাহ আদতে কৃষির সঙ্গে কতটুকু সম্পৃক্ত আছে তার একটা খবর রাখা। গত বছর রহিমুল্লাহ আমাকে জানালেন, তার খুব ইচ্ছা তার চাষের কুল তিনি রাষ্ট্রপতি মহোদয় ও প্রধানমন্ত্রীকে খাওয়াবেন। আমি কি কোনো ব্যবস্থা করতে পারব! আমি বললাম, পাঠান, আমি চেষ্টা করে দেখি।

Sharing is caring!

Loading...
Open