সিলেটে বন্ধ হয়নি অবৈধ বাণিজ্য মেলা, প্রশাসনের সহযোগীতায় চলছে ব্যবসায়ীদের অভিযোগ (ভিডিওসহ)


সিলেটে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা উপেক্ষা করে সিলেটে চলছে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা। চালু রয়েছে সব ধরনের কার্যক্রম। এদিকে পুলিশ বলছে মেলা বন্ধে কর্তৃপক্ষকে নোটিশ দিয়েছে। অপরদিকে সিলেটের ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করছেন প্রশাসনের সহযোগীতায় এখন মেলা চলছে। ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করে বলছেন, চলমান মেলার মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়েছিল গত সোমবার (১৫ এপ্রিল) পর্যন্ত।
কিন্তু বুধবার (১৭ এপ্রিল) প্রায় পেরিয়ে গেলেও এখনও মেলার সব কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন সংশ্লিষ্টরা।

এই মেলার এখন মেয়াদ নেই, এই মেলা অবৈধ।

এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে বুধবার সন্ধ্যায় সরেজমিনে মেলা মাঠে গিয়ে দেখা যায়,
দোকানপাঠ খোলা, সবধরনের পণ্য বিক্রয় হচ্ছে। টিকিটির বিনিময়ে চলছে সব ধরণের রাইড। চলছে গান-বাজনা।

এদিকে গত সোমবার সিলেটর ব্যবসায়ীদের পক্ষে মেলা বন্ধের দাবী জানান সিলেট জেলা ব্যবসায়ী ঐক্য কল্যাণ পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা শেখ মখন মিয়া চেয়ারম্যান। তিনি মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রিজকে মেলা বন্ধের জন্য অনুরোধ করেছেন বলে তিনি জানান । তিনি জানান, যদি মেলা কর্তৃপক্ষ মেলা বন্ধ না করেন তাহলে সিলেটের ব্যবসায়ীদের নিয়ে আন্দোলনে নামবেন।

সিলেট মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স আয়োজিত মাসব্যাপী আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা শুরু হয়েছিল ৯ মার্চ থেকে। যা শেষ হওয়ার কথা ৮ এপ্রিল। এ দিনই মেলা সম্পন্ন করার নির্দেশও দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। অবশ্য পরে মেলা কর্তৃপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সাতদিন মেয়াদ বৃদ্ধি করে দিয়ে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত নেয়।

মেয়াদ বৃদ্ধির বিষয়টি ১১ এপ্রিল (বৃহস্পতিবার) সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশকে একটি স্মারকে জানায় মন্ত্রণালয়। ওই নির্দেশনার আলোকে সোমবার মেলার কার্যক্রম বন্ধের কথা থাকলেও সেটা করেননি সংশ্লিষ্টরা।

একটি সূত্র জানায়, মেলার মেয়াদ আরও বৃদ্ধির জন্য ইভেন্ট ম্যানেজম্যান্টের এক কর্মকর্তা বুধবার পর্যন্ত বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে অবস্থান করেন। যে কারণে মেলা বন্ধ না করে পুলিশ পাহারা ছাড়াই টিকিয়ে রাখা হয়েছে। যাতে আবারও মেলার মেয়াদ বৃদ্ধির অনুমোদন এনে সচল অবস্থায়ই শুরু করা যায়।

এদিকে মাসব্যাপী বাণিজ্যমেলার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত সিলেটের ব্যবসায়ীরা। মেলার বিপক্ষে অনেক ব্যবসায়ী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সিলেটে পর পর দু’টি আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা হয়ে গেলো। এ ধরনের অনুমোদন দেওয়ার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে মনোযোগী হওয়া উচিত। কেননা, ব্যবসায়ীরা ট্যাক্স, ভ্যাট দিয়ে ব্যবসা করেন। অথচ আশানুরূপ বিক্রি নেই। আর এভাবে একের পর এক মেলা আয়োজনের অনুমতি দিলে নিজেদের লাল বাতি জ্বলে উঠবে- জানিয়েছেন সিলেট ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির নেতারা।

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক একজন ব্যবসায়ী জানান, চলমান মেলার মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়েছিল গত সোমবার পর্যন্ত। কিন্তু বুধবার প্রায় পেরিয়ে গেলেও এখনও মেলার সব কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন সংশ্লিষ্টরা। এই মেলার এখন মেয়াদ নেই, এই মেলা অবৈধ। প্রশাসনকে মেলার আয়োজোকরা টাকা দিয়ে কিনে রেখেছে, টাকার কাছে সিলেট প্রশাসনও অসহায়!

সিলেট জেলা ব্যবসায়ী ঐক্য কল্যাণ পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা শেখ মখন মিয়া চেয়ারম্যান বলেন, এভাবে একের পর এক মেলা আয়োজনের অনুমতি দিলে ব্যবসায়ীদের লস হবে। আমি গত সোমবার সিলেট মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রিজে গিয়ে মেলা বন্ধের জন্য অনুরোধ করেছি। তিনি জানান, যদি মেলা কর্তৃপক্ষ মেলা বন্ধ না করেন তাহলে সিলেটের ব্যবসায়ীদের নিয়ে আন্দোলনে নামবেন।

এ বিষয়ে সিলেট এয়ারপোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম শাহাদাত হোসেনের মোবাইলে কল করলে তিনি কল রিসিভ করেননি। মঙ্গলবার তিনি বলেছিলেন, মেলা বন্ধ করতে আমরা নির্দেশনা দিয়েছি। মেলা প্রাঙ্গণ থেকে পুলিশ সরিয়ে আনা হয়েছে। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে টিকিট বিক্রির বুথ। তবে মেলার গেট উন্মুক্ত রয়েছে। ক্রেতারা হয়তো কেনাকাটায় যেতেও পারেন।

এ বিষয়ে মহানগর পুলিশের মুখপাত্র জেদান আল মুছা বলেন, মঙ্গলবার মেলা বন্ধ থাকার কথা। মেলা প্রাঙ্গণ থেকে পুলিশও সরিয়ে আনা হয়েছে। এরপরও মেলার কার্যক্রম চললে বিষয়টি দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মোতাবেক পুলিশ ব্যবস্থা নেবে।

উল্লেখ্য, গত ৯ মার্চ সিলেট সদর উপজেলার শাহী ঈদগাহ মাঠে মাসব্যাপী আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলাটির উদ্বোধন করেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

Sharing is caring!

Loading...
Open