৪ শিক্ষার্থীর পরিবারকে ৫০ লাখ করে ক্ষতিপূরণে রুল


সুরমা টাইমস ডেস্ক ঃঃ ঢাকার কেরানীগঞ্জ ও চট্টগ্রামে জানুয়ারি মাসে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত চার শিক্ষার্থীর পরিবারকে ৫০ লাখ টাকা করে কেন ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে না, জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাই কোর্ট।

জনস্বার্থে করা এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিল সমন্বয়ে গঠিত হাই কোর্ট বেঞ্চ মঙ্গলবার (৫ ফেব্রুয়ারি) এ রুল জারি করেন।

রুলের পাশাপাশি নিহত চারজনের প্রত্যেকের পরিবারকে ১৫ দিনের মধ্যে আপাতত এক লাখ টাকা করে দিতে স্বরাষ্ট্র সচিব, যোগাযোগ সচিব ও বিআরটিএ চেয়ারম্যানকে অন্তর্বর্তীকালীন আদেশ দেন হাই কোর্ট।

আদালতে রিটকারীর পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার আবদুল হালিম। আদেশের পর তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ওই তিন দুর্ঘটনার প্রতিবেদন অথবা মামলার নথি, নিহতদের নাম-পরিচয়, চালক ও পরিবহনগুলোর মালিকের পরিচয় দাখিল করতে বলেছেন আদালত। এই রিট মামলাটি আগামী ১৫ এপ্রিল পরবর্তী আদেশের জন্য আবার হাই কোর্টে উপস্থাপন করা হবে।

গত ২২ জানুয়ারি চট্টগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী কাজী মাহমুদুর রহমান (১৪), ১৬ জানুয়ারি কলেজ শিক্ষার্থী সোমা বড়ূয়া (১৮) ও ২৮ জানুয়ারি ঢাকার কেরানীগঞ্জে সহোদর দুই শিশু আফসার হোসেন (৮) ও ফাতিমা আফরিনের (১০) মৃত্যু হয়। চার শিক্ষার্থীর পরিবারের জন্য ক্ষতিপূরণের দাবি নিয়ে চিলড্রেন চ্যারিটি বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন এবং বাংলাদেশ লিগ্যালএইড অ্যান্ড সার্ভিসেস ট্রাস্টের পক্ষে হাই কোর্টে এ রিট আবেদন করা হয়।

হাই কোর্টের রুলে মোটরযান অধ্যাদেশের সংশ্নিষ্ট বিধি অনুযায়ী বাস, ট্রাকসহ মোটরযান চালকদের যথাযথ প্রশিক্ষণে ব্যর্থতা এবং দুর্ঘটনার পর মামলা না করা ও চালকদের গ্রেফতার না করা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়েছে। পাশাপাশি সব সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিবারকে সমান হারে অন্তর্বর্তীকালীন ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ কেন দেওয়া হবে না, তাও জানতে চাওয়া হয়েছে।

আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে স্বরাষ্ট্র সচিব, সড়ক পরিবহন ও সেতু সচিব, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) চেয়ারম্যান, পুলিশের আইজি, ডিএমপি কমিশনার, চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের কমিশনারসহ ১৪ বিবাদীকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open