কমিয়ে দেওয়া হল ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতা


সুরমা টাইমস ডেস্ক : গত মঙ্গলবার বৃটিশ সরকারের আর্থিক বিলে (ফাইন্যান্স বিল) সংশোধনী চেয়ে বৃটেনের সংসদে একটি প্রস্তাব পাস হয়। এর ফলে চুক্তি ছাড়া ব্রেক্সিট কার্যকর করতে গেলে সরকার জনগণের ওপর করের বাড়তি বোঝা চাপাতে পারবে না। ব্রেক্সিট চুক্তিতে সরকারকে নিরুৎসাহিত করতেই আর্থিক ক্ষমতা সীমিত করার এই কৌশল অবলম্বন করা হয়েছে।

ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে’র ব্রেক্সিট চুক্তির ওপর ঐতিহাসিক ভোটকে সামনে রেখে বুধবার থেকে দেশটির পার্লামেন্টে পাঁচ দিনব্যাপী বিতর্ক শুরু হতে যাচ্ছে। বিরোধীরা চুক্তিটির বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে ব্রিটেনের বেরিয়ে আসার চুক্তিটির ক্ষেত্রে এই ভোট খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ইইউ’র সাথে মে এই চুক্তিটি করেন।

ব্রিটেনের এমপিরা আগামী মঙ্গলবার এই ভোট দিবেন।

তবে মে’র নিজ দলের কোন কোন সদস্য এই বিলের পক্ষে রায় নাও দিতে পারেন। কারণ তাদের আশঙ্কা এর মাধ্যমে ব্রিটেন সম্পূর্ণভাবে ইইউ থেকে বেরিয়ে আসতে পারবে না। কোন না কোনভাবে দেশটিকে এই জোটের সাথে সম্পর্ক রাখতেই হবে।

ব্রেক্সিট কার্যকর করতে দীর্ঘ প্রায় ১৮ মাসের সমঝোতার পর ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সঙ্গে একটি চুক্তিতে পৌঁছান যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠ এমপির সমর্থন পেলে তবেই কার্যকর হবে এই চুক্তি। গত বছরের ১১ ডিসেম্বর চুক্তি অনুমোদন প্রশ্নে সংসদে ভোটাভুটি হওয়ার কথা ছিল। এমপিদের তুমুল বিরোধিতা আঁচ করে হেরে যাওয়ার আশঙ্কায় প্রধানমন্ত্রী মে একেবারে শেষ মুহূর্তে ভোটাভুটি পিছিয়ে দেন। আগামী মঙ্গলবার (১৫ জানুয়ারি) ভোটাভুটির নতুন তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

আগামী ২৯ মার্চ ব্রেক্সিট কার্যকর হবে বলে দিনক্ষণ ঠিক করা রয়েছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open