ফিরে দেখা ২০১৮: গোলাপগঞ্জে কমেছে হত্যাকান্ড, বেড়েছে আত্মহত্যা

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি:: বিভিন্ন ঘটনা দুর্ঘটনার মধ্য দিয়ে দেখতে দেখতে চলে গেল আরও একটি বছর। বিগত বছরে গোলাপগঞ্জে ঘটে গেছে নানা অপ্রীতিকর ঘটনা। ২০১৮ সালে হত্যাকাণ্ড কমলেও বেড়েছে আত্মহননের ঘটনা।

২০১৭ সালের ১২ মাসের প্রতিমাসেই হত্যা, লাশ উদ্ধার, আত্মহত্যা, ধর্ষণ ও অস্বাভাবিক মৃত্যু ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পেয়েছিল। এ সালে বছর জুড়ে ঘটেছে ১৩টি হত্যাকাণ্ড, ৫টি আত্মহত্যা ও ২টি রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

তবে ২০১৮ সালের ১৮ মার্চ বজ্রপাতে গ্যাস রাইজ থেকে সৃষ্ট অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাটি উপজেলাবাসীর হৃদয়ে ক্ষতের সৃষ্টি করেছিল। এ ঘটনায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে শিশুসহ ৫ জনের মৃত্যু হয়। এছাড়াও অক্টোবর ও নভেম্বর মাসে ৫টি লাশ উদ্ধার জনমনে আতংক সৃষ্টি করেছিল।

পুলিশ ও বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালের ২ জানুয়ারি প্রিয়াংকা রানী দেব (২৪) নামে এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। ওই গৃহবধূ উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ ইউপির দত্তরাইল গ্রামের অরুণ দেব নাথের ছেলে দুবাই প্রবাসী টিটন কুমার দেব (৩৫) এর স্ত্রী ও বিশ্বনাথ থানার সদর ইউপির জানাইয়া গ্রামের দিলিপ কুমার দেবের মেয়ে।

একই মাসের ৩ তারিখে সুজেনা বেগম (৫৫) নামে এক বৃদ্ধা কীটনাশক পান করে আত্মহত্যা করেন। ওই বৃদ্ধা উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ ইউপির দক্ষিণ রায়গড় গ্রামের আলাউদ্দিন মিয়ার স্ত্রী ছিলেন। এ ঘটনায় পুলিশ দাবি করে, ওই বৃদ্ধা মহিলা ঔষধ মনে করে ভুলে কীটনাশক পান করলে তার মৃত্যু ঘটে।

সর্বশেষ ১৪ জানুয়ারি আব্দুল খালিক (৩০) নামের এক রিকশাচালক আত্মহত্যা করেন। তিনি গোলাপগঞ্জ পৌরসভার রণকেলী উত্তর ঘোড়ামারা গ্রামের মৃত সিকন্দর আলী উরফে চিকই আলীর ছেলে।

ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে কোন ঘটনা না ঘটলেও ৯ ফেব্রুয়ারি মুন্নি বেগম (১৯) নামে এক তরুণী রহস্যজনক কারণে আত্মহত্যা করেন। তিনি উপজেলার উত্তর বাদেপাশা ইউপির আমকোনা মোকামবাড়ীর আখলাছ আলীর ছোট মেয়ে। এ ঘটনায় পুলিশ একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করে।

এ বছর মার্চ মাসের ১৮ তারিখে হৃদয় বিদারক একটি ঘটনা ঘটে। এই দিন রাতে ঘুমন্ত অবস্থায় বজ্রপাত থেকে গ্যাসের রাইজারে সৃষ্ট অগ্নিকাণ্ডে শিশুসহ ৬ জন অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যায়। এ ঘটনাটি উপজেলাবাসীর মনে ক্ষতের সৃষ্ট করে। ওই দিন রাতে উপজেলার লক্ষণাবন্দ ইউপির ক্লাববাজার টিলা বাড়ী এলাকায় লয়লু মিয়ার কলোনিতে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় নিহতরা হলেন- গোলাপগঞ্জ উপজেলার শরিফগঞ্জ ইউনিয়নের পনাইরচক গ্রামের মছকন্দর আলীর অন্ত:সত্ত্বা স্ত্রী সেবু বেগম (২২), সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলার মোগলাবাজার খালেরমুখ গ্রামের বাবলু মিয়া (৩৫), তার অন্ত:সত্ত্বা স্ত্রী তাহমিনা বেগম (৩০), শিশু সন্তান তাহসিন আহমদ (২), গোলাপগঞ্জের নোয়াই দক্ষিণভাগ এলাকার মৃত ইসরাইল আলীর পুত্র সেবুল মিয়া (১৬) ও একই এলাকার শাহাব উদ্দিনের পুত্র ইয়া উদ্দিন (১৮)।

এ বছরে এপ্রিল মাসের প্রথম সপ্তাহের শেষ দিনে কনিকা রানি মালাকার (২৪) নামে এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেন। তিনি উপজেলার ফুলবাড়ী ইউপির হেতিমগঞ্জ মোল্লাপাড়া গ্রামের মৃত মনোচঞ্জন মালাকারের ছেলে রাজু মালাকারের স্ত্রী ও ঢাকাদক্ষিণ ইউপির দত্তরাইল ফারুক মিয়ার কলোনির বাসিন্দা।

এরপর এ মাসের শেষ দিকে ২৯ এপ্রিল গোলাপগঞ্জে আফজাল হোসেন (২৩) নামে এক সিএনজি অটোরিকশাচালক আত্মহত্যা করেন। তিনি উপজেলার শরিফগঞ্জ ইউপির লামা মেহেরপুর গ্রামের মৃত ছমর আলীর ছেলে।

এ বছরের মে মাস ও জুন মাস গোলাপগঞ্জ উপজেলা শান্ত থাকলেও জুলাই মাসের ২৬ তারিখ আবু বক্কর সিদ্দিক এহিয়া (২০) নামে এক বিদ্যুৎকর্মী আত্মহত্যা করেন। তিনি উপজেলার বাঘা ইউপির রস্তমপুর গ্রামের সাইফুল ইসলামের ছেলে।

আগস্ট ও সেপ্টেম্বর মাসের কোন ঘটনা না ঘটলেও ১২ নভেম্বর রাশেদা আক্তার মার্জনা (২১) নামে এক কলেজ শিক্ষার্থী রহস্যজনক কারণে আত্মহত্যা করেন। রাশেদা গোলাপগঞ্জ উপজেলার লক্ষণাবন্দ ইউপির নিজাম উদ্দিনের মেয়ে ও ঢাকাদক্ষিণ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষার্থী ছিলেন।

২০১৮ সালের অক্টোবর ও নভেম্বর মাসে ৫টি লাশ উদ্ধারে উপজেলাজুড়ে আতংকের সৃষ্টি হয়।

এ বছরের অক্টোবর মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহের দিনে বাঘা ইউনিয়নের রস্তমপুরে কানাইঘাটের মাওলানা মুহিবুর রহমান (৫২) নামের এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করা হয়। এর কিছুদিন পর ২৮ অক্টোবর চৌঘরীস্থ সুরমা নদী থেকে ভাসমান অজ্ঞাত লাশ উদ্ধার করা হয়। এই লাশের পরিচয় পুলিশ পায়নি। এর দুদিন পর ৩০ অক্টোবর বাঘা ইউনিয়নের তুড়গাও গ্রামের সুরমা নদীর তীরে ভাসমান অবস্থান অবস্থায় চুনু মিয়া (৫০) নামের আরেক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করা হয়।

৩ নভেম্বর উপজেলার ভাদেশ্বর ইউনিয়নের মাইজভাগ গ্রামে আমজদ আলী নামের এক বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ৮ নভেম্বর সকালে উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের রায়গড় লেচু বাগান থেকে অজ্ঞাত যুবতীর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ১৪ নভেম্বর লক্ষনাবন্দের দক্ষিণভাগে কলেজ ছাত্রী রাশেদা বেগমের (২১) গলায় ওড়না পেঁচানো ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

দক্ষিণভাগ দেওপাড়া গ্রামের নিজাম উদ্দিন কুকিল মেম্বারের মেয়ে রাশেদা প্রেম সংগঠিত কারণে হয়তো আত্মহত্যা করেছে বলে পুলিশের ধারণা ছিল। ২০১৮ সালে ঢাকাদক্ষিণ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কলেজকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিল বলে জানা যায়।

তবে বছরের শেষ মাস ডিসেম্বরে সারাদেশের ন্যায় গোলাপগঞ্জও নির্বাচনী ডামাডোলে মেতে থাকায় তেমন কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি উপজেলায়।

সব মিলিয়ে ২০১৮ সালে গোলাপগঞ্জবাসীর জন্য তেমন সুসংবাদ না থাকলেও তাদের প্রত্যাশা ২০১৯ সাল সবার জন্য বয়ে আনবে অনাবিল, সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধির বার্তা।

Sharing is caring!

Loading...
Open