কুলাউড়ায় যুবককে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় ৪ জন আটক

কুলাউড়া প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার বরমচাল ইউনিয়নে ব্যক্তিগত বিরোধের জেরে বাড়িতে গিয়ে ঘর থেকে বের করে ইমন মিয়া (৩২) নামে যুবককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

শুক্রবার বেলা আড়াইটার দিকে উপজেলার বরমচাল ইউনিয়নের খাদিমপাড়া গ্রামে নিহত ইমন মিয়ার বাড়িতে এ ঘটনাটি ঘটে। নিহত ইমন একই গ্রামের বাতির মিয়ার ছেলে।

ওই ঘটনায় একই ইউনিয়নের সিংগুর গ্রামের লুতফর রহমান অরুন, তার চাচাত ভাই দীপু এবং ভাতিজা নোমানকে ওসমানী হাসপাতালে চিকিৎসাবস্থায় আটক করা হয়েছে। অরুনের আরেক ভাতিজা জাহিরুল (২২)-কে আটক করে থানায় আনা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ইমন ডাকাতির সাথে জড়িত ছিলো। তাঁর বিরুদ্ধে কুলাউড়া থানায় ডাকাতি মামলা রয়েছে। এবং সে ওই মামলার পলাতক আসামী ছিলো।

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা যায়, ব্যাক্তিগত বিরোধের জেরে শুক্রবার জুম্মার নামাজ শেষে হযরত শাহ কালা (র.) মাজার মসজিদ থেকে বের হবার পর খাদিমপাড়া গ্রামের ইমন মিয়া একই গ্রামের সঞ্জর মিয়ার ছেলে অরুণ মিয়ার ওপর হামলা চালায়। পরে অরুণ মিয়ার নেতৃত্বে দিপুসহ ৫/৬ সদস্যের একটি দল দেশীয় অস্ত্রসহ ইমনের বাড়িতে হামলা চালায়। তাঁর ঘরের পেছনের দরজা ভেঙ্গে এসময় তারা ইমনকে ঘর থেকে বাড়ির আঙ্গিনায় এনে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। এতে ইমনের শরীর থেকে হাত-পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় এবং সে মারা যায়। পরে তারা একটি মাইক্রোবাসযোগে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে কুলাউড়া থানার পুলিশসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শামীম মুসা বলেন, এ ঘটনায় ৩ জন আটকাবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। আরেকজনকে থানায় আটক আছে। একজন মহিলাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আনা হয়েছে। নিহতের পরিবার মামলা দিলে তাকেও আটক দেখানো হবে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কুলাউড়া সার্কেল) আবু ইউসুফ খুনের সত্যতা নিশ্চত করে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে তাদের মধ্যে জায়গা সম্পত্তির বিরোধের জেরে ঘটনাটি ঘটেছে। বাড়িতে গিয়ে ইমনকে কুপিয়ে হত্যা করেছে একই গ্রামের লুতফর রহমান অরুন, তার চাচাত ভাই দীপু এবং ভাতিজা নোমান । তাদেরকে ওসমানী হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। তার আরেক ভাতিজা জাহিরুল (২২) থানায় আটক আছে। তিনি বলেন, নিহতের বিরুদ্ধে ২০১২ সালের একটি ডাকাতি মামলা রয়েছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open