শোকজ হওয়া প্রসংঙ্গে মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক নাদেলের স্ট্যাটাস

সুরমা টাইমস ডেস্ক:: সিসিক নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরান পরাজয়ের দায় দেয়া হয় সিলেট আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতাকে। এরমধ্যে শোকজ করা হয় কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দীন আহমদ ও সাংগঠনিক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেলকে।

এতে মনক্ষুন্ন আওয়ামী লীগের নেতারা। তারা বলেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে জয়ী করার জন্য সব মনমালিন্য ভুলে এক হয়ে কাজ করেছি। তবুও আমরা পরাজিত হয়েছি। এই দায় আমরা এড়িয়ে যেতে পারিনা। তবে পরাজয়ের নেপথ্যে দলীয় প্রার্থীর ব্যর্থতা রয়েছে। যা আমরা কেন্দ্রীয় কমিটিকে লিখিতভাবে অবহিত করব। শোকজ করায় বিষয়টি আরও পরিষ্কার হবে।

এদিকে গত মঙ্গলবার (১১ই সেপ্টেম্বর) বিকেলে মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদের তার ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

স্ট্যাটাসটি হুবহু প্রকাশ করা হলো:- বিগত সিটি নির্বাচনে পরাজয় কে কেন্দ্র করে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ , সিলেট মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ ও সাংগঠনিক সম্পাদক আমি শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, বরাবর নির্বাচনে পরাজয়ের কারণ ও নিজ নিজ দায়িত্ব পালনের ব্যাখ্যা চেয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠানো হয়েছে ।

এই কারণ দর্শানো নোটিশ পাঠানোকে কেন্দ্র করে আপনারা অনেকেই কৌতুহল, উৎকন্ঠা এবং উদ্বেগ থেকে আমার সাথে যোগাযোগ করছেন । যার পরিপ্রেক্ষিতে আমি ব্যাক্তিগতভাবে সকলের জ্ঞাতার্থে আমার অবস্থান তুলে ধরছি ।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাদেরকে সিসিক নির্বাচনে তাঁর মনোনীত প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করার নির্দেশ দিয়েছিলেন, যা পালনে আমরা ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছি ৷

সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে আমি এই ব্যর্থতার দায়ভার এড়াতে পারি না ৷

কারণ দর্শানোর চিঠি হস্তগত হওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন , কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের কাছে লিখিত বক্তব্যে নির্বাচনী কর্মকাণ্ডে আমার দায়িত্ব, কার্যক্রম ও দলীয় সাংগঠনিক অবস্থা সহ সার্বিক পরিস্থিতির ব্যাখ্যা দিবো ইনশাআল্লাহ ৷

ওই স্ট্যাটাসে জিতু আহমদ নামের একজন মন্তব্য করেন, প্রিয় নেতা প্রিয় ভাই, আপনে পরিক্ষিত একজন মুজিব সৈনিক, আপনার পরিশ্রম সফল হয় নি আমরা কষ্ট পেয়েছি, কিন্তু আপনার পাশে ছিলাম পাশে আছি এবং পাশে থাকবো সব সময়।

আব্দুল রাহাদ জাবেদ নামের একজন ফেসবুকে মন্তব্য করেন, সিটি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীকে জয়ী করার জন্য আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করেছে বিধায় সামান্য ভোটের জন্য পরাজিত হয়েছেন। এখানে প্রার্থী পরাজয়ের আসল কারন হলো প্রার্থীর ব্যক্তিগত ইমেজ নষ্ট এবং জনপ্রিয়তা কমে গেছে আগের তুলনায়। শ্রদ্ধেয় নেতার বিরুদ্ধে এটি একটি ষড়যন্ত্র। ইনশাআল্লাহ সত্যের জয় হবেই।

সৈয়দ সাদেক নামের আরেকজন মন্তব্য করেন, শফিউল আলম নাদেল একদিনে তৈরী হয়নি। পিছনে রয়েছে ঘাত-প্রতিঘাতে নাদেলরা ধ্বংস হবে না । এদের অবস্থান জননেত্রী শেখ হাসিনার পিছনে। জয় বাংলা ।

Sharing is caring!

Loading...
Open