“সিলেট-২ আসনে উন্নয়নের জন্য জনগণ কাকে দেখতে চায়?”

নিজস্ব প্রতিবেদক::     নতুন উপজেলা ওসমানী নগরের অন্তর্ভুক্তির পর বালাগঞ্জ উপজেলা আসন থেকে কেটে নেওয়ায় ক্ষোভ রয়েছে সিলেট-২ আসনের ভোটারদের। এছাড়া এ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ইলিয়াস আলীর গুমের ঘটনাটিকে সহজভাবে দেখেননি এলাকার মানুষ। বিএনপি নেতারা বলছেন, ইলিয়াস আলীর জন্যই তার সহধর্মীণিকে এই আসনে জয়ী করতে হবে। আর ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের মতে, উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকার কোনো বিকল্প নেই।

প্রবাসী অধ্যুষিত বিশ্বনাথ ও ওসমানী নগর উপজেলা নিয়ে সিলেট-২ আসন। এক সময় জাতীয় পার্টির ঘাঁটি বলে খ্যাত এই আসনে বর্তমানে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্যসহ দশম সংসদ নির্বাচন পর্যন্ত দলটি চারবার জয় পায়। আর আওয়ামী লীগ ও বিএনপি ৩ বার করে জয়ী হয়। এই দুই উপজেলার প্রায় প্রতি বাড়ির কেউ না কেউ প্রবাসে রয়েছেন। প্রবাসীরা বিপুল অঙ্কের বৈদেশিক মুদ্রা পাঠালেও এলাকার উন্নয়নে তেমন সন্তুষ্ট নন ভোটাররা।

সাধারণ ভোটাররা জানান, গতবছরের সিলেট বিশ্বনাথ উপজেলায় উন্নয়ন হয়নি।

অন্য এক ভোটার জানান, আগের থেকে এই এলাকায় কম উন্নয়ন হয়েছে। বিশেষ করে সাধারণ মানুষের যাতায়াতের জন্য তেমন উন্নয়ন করা হয়নি। আগামী নির্বাচনে আমরা এ প্রার্থী চাই। যারা সিলেটের বিশ্বনাথের কাজ করবেন।

অন্যদিকে, এই আসনের উন্নয়নে যোগ্য প্রার্থী খুঁজছেন বলে জানান ভোটাররা।

আওয়ামী লীগ নেতার মতে, বিশ্বনাথ-ওসমানীনগরের উন্নয়নের জন্যই জনগণ আবার আওয়ামী লীগকে বেঁচে নিবে। তবে বিএনপির নেতাদের দাবি, বিগত দশ বছরে এলাকার কোনো উন্নয়ন হয়নি।

বিশ্বনাথ উপজেলা শ্রম বিষয়ক সম্পাদক সাধন চন্দ্র দাশ বলেন, আমরা আশা রাখি, আওয়ামী লীগকে সরকারকে যদি জনগণ আবার বিজয়ী করেন। তাহলে আমাদের দেশে আরো উন্নয়ন হবে।

সিলেট জেলা বিএনপি সহ-সভাপতি সুহেল আহমদ চৌধুরী বলেন, আমরা জানি, সিলেটের ৬০-৭০ শতাংশ মানুষ বিএনপিকে ভালোবাসে। সেই সাথে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে ভালোবাসেন।

এ আসনে ভোটার তিন লাখ এক হাজার ২৮৯। যার মধ্যে পুরুষ এক লাখ ৫৩ হাজার ৯৬০ জন ও নারী ভোটার এক লাখ ৪৭ হাজার ৩২৯ জন।

Sharing is caring!

Loading...
Open