জীবন যুদ্ধে পরাজিত সৈনিক সিলেটের মুক্তিযোদ্ধা হারুন মিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক::    ১৯৭১-এ হারুন মিয়া ছিলেন টগবগে একজন যুবক। মা-বাবাকে বাড়িতে রেখে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে ঝাপিয়ে পড়েছিলেন মুক্তিযুদ্ধে। জীবনবাজি রেখে যুদ্ধে করার পর এ দেশ স্বাধীন হলেও জীবন যুদ্ধে তিনি আজ পরাজিত সৈনিক। বর্তমানে বীর মুক্তিযোদ্ধা হারুন মিয়া স্ত্রী-সস্তানের মুখে দু’বেলা দু’মঠো অন্ন যোগান দিতে সিএনজি চালিত অটোরিকশা চালিয়ে কোন মতে জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন।

সিলেট জেলার গোলাপগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণবাগ ভাদেশ্বর গ্রামের মৃত আব্দুল মাজ্জাদ ও মৃত আমিনা খাতুনের ছেলে হারুন মিয়া। হারুনের বয়স ৬৯ বছর। তিনি ১ ছেলে ও ২ মেয়ের জনক। সহায় সম্বলহারা এই মুক্তিযোদ্ধার আশ্রয়ের জন্য নেই কোন নিজস্ব ভিটে মাটি। বর্তমানে তিনি পরিবারসহ সিলেটের ইসলামপুর এলাকার দেবীকা ৯নং বাসায় ভাড়াটিয়া হিসাবে বসবাস করছেন। আয় রোজগারের কোন পথ না পেয়ে বৃদ্ধ বয়সেও একটি সিএনজি দৈনিক ৫ শত টাকা ভাড়া নিয়ে চালান তিনি। পরিবার চালাতে হিমশিম অবস্থার মধ্যে আছেন তিনি। ৫ বছর যাবত সরকারী সুযোগ সুবিধা পাওয়ার পরও বীর মুক্তিযোদ্ধা হারুন মিয়ার অভাবে চলছে তার সংসার।

বীর মুক্তিযোদ্ধা হারুন মিয়া তার যুদ্ধকালীন সংক্ষিপ্ত বর্ণনায় জানান, ৭১-এ যুদ্ধের প্রস্তুতি নিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা বাবরুল হোসেন বাবুলের নেতৃত্বে ৪নং সেক্টর ১২ কুঞ্জিতে গিয়ে ৪নং সেক্টর কমান্ডার চিত্তরঞ্জন দত্ত এর সাথে দেখা হয়। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সম্মুখযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন তিনি। তার বহি নং ৩৩০।

আলাপকালে তিনি আরো জানান, সরকার প্রদত্ত যে ভাতা পাই, তা দিয়ে সংসার চালানো কষ্টসাধ্য। তাই বাধ্য হয়ে পেটের দায়ে অটোরিকশা চালাই। তিনি সরকারসহ সকলের নিকট সহযোগীতা কামনা করেছেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open