কারাবন্দি খালেদার সঙ্গে নাতনি-পুত্রবধূর সাক্ষাৎ, দেখা পাননি বিএনপি নেতারা

সুরমা টাইমস ডেস্ক :: কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন স্বজনরা। এদের মধ্যে খালেদার মেজো বোন সেলিমা ইসলাম, ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান সিঁথি, তার মেয়ে জাহিয়া রহমান, বড় ভগ্নিপতি রফিকুল ইসলাম, তারেক রহমানের স্ত্রী জোবায়দা রহমানের বোন শাহিনা খান জামান ও খালেদা জিয়ার ভাই সাঈদ ইস্কান্দরের স্ত্রী নাসরিন ইস্কান্দর।

এদিকে ঈদের দিন জামাত শেষে দুপুর ১২টার দিকে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ বিএনপির একটি দল খালেদার সাক্ষাৎ পেতে কারাগারে যাওয়ার পথে পুলিশের বাধায় ফেরত আসেন।

জানা গেছে, খালেদার কাছে ঘরের তৈরি খাবার পৌঁছাতে পারেনি তার পরিবার। পূর্বানুমতি থাকলেও কারা কর্তৃপক্ষ খাবার সেলের ভেতরে নিতে দেয়নি বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির চেয়ারপারসনের মেজো বোন সেলিমা ইসলাম।

বুধবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পরিত্যক্ত কেন্দ্রীয় কারাগারে বিকাল ৩টা ৪০ মিনিটে স্বজনরা কারাগারে প্রবেশ করেন। প্রায় দেড় ঘণ্টা পর তারা বিকাল ৫টা ১০মিনিটে কারাগার থেকে বেরিয়ে আাসেন।

এসময় সেলিমা ইসলাম পরিবারের তৈরি করা খাবার খালেদার কাছে নিতে দেয়নি বলে অভিযোগ করেন। তিনি গণমাধ্যমের কাছে বলেন, ‘আমাদের তৈরি রান্না করা খাবার নিয়ে এসেছিলাম, কিন্তু ভেতরে নিয়ে যেতে দেয়নি।’

সেলিমা ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, ‘খালেদা জিয়ার কাছে ঘরের তৈরি খাবার পৌঁছেনি। আর ওই সময় পর্যন্ত তিনি খাবার গ্রহণ করেননি। তার শরীর অনেক খারাপ। ঈদের দিন বিকাল পর্যন্তও কিছু খাননি তিনি।’

সেলিমা ইসলাম গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বললেও স্বজনদের বাকিরা কোনও মন্তব্য করেননি। তারা কারাগার থেকে বেরিয়ে যান।

বুধবার ঈদুল আজহার দিন দলের চেয়ারপারসনের সঙ্গে দেখা করতে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নজরুল ইসলাম খান, মির্জা আব্বাস, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস নাজিম উদ্দীন রোডে পুরনো কারাগারে যান।

নাজিম উদ্দীন রোডের মাথায় আগে থেকেই ব্যারিকেড তৈরি করে রাখে পুলিশ। আর সেখানেই আটকে দেওয়া হয় বিএনপি নেতাদের। পরে তারা আর সামনের দিকে যাওয়ার চেষ্টা না করেই ফেরত আসেন।

যদিও এসময় মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং খন্দকার মোশাররফ হোসেন অনুমতি চেয়ে বিএনপির প্যাডে লেখা চিঠি পুলিশকে দেখিয়ে বলেন, ‘দেখা করার অনুমতি চেয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে আমরা চিঠি দিয়েছি। তাছাড়া ঈদের দিন আত্মীয়-স্বজন এবং রাজনৈতিক সহকর্মীদের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ বন্দির আইনগত অধিকার।’

এ সময় দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা তাদেরকে বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমাদের কাছে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কোনো নির্দেশনা নেই। যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে নির্দেশনা পেলে আমরা দেখা করতে দিতাম।’

এরপর পুলিশের সঙ্গে কথা না বাড়িয়ে দুপুর পৌনে ১টার দিকে নাজিম উদ্দীন রোড থেকে ফিরে যান বিএনপি নেতারা।

Sharing is caring!

Loading...
Open