সিলেটে শেষ সময়ে জমে উঠেছে পশুর হাট, কমেছে দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক :: রাত পোহালেই ঈদ। সিলেটে ঈদের আগের দিন দুপুরে বৃষ্টির কারণে ক্রেতার আনাগোনা কিছুটা কমে গেলেও বিকালের পর থেকে থেকে পুরোদমে জমে উঠেছে শেষ মুহুর্তের কুরবানির পশু বিক্রির হাট। এদিকে হাটে গরু কিনতে আসা অনেক ক্রেতা জানালেন আজ গরুর দাম কিছুটা কমেছে।

সিলেটের কুরবানির পশুর হাটগুলোতে চলছে শেষ মুহূর্তের কেনাবেচা। আজ (মঙ্গলবার) শেষ দিনে বেশিরভাগ হাটে কমেছে পশুর দাম। গত এক সপ্তাহ যাবৎ ছিল কুরবানির পশু বিক্রির ধুম। শেষ দিনে এসে বিক্রিও বেড়েছে আগের তুলনায় বেশি।

মঙ্গলবার দুপুর বৃষ্টির জন্য হাটগুলোতে ক্রেতা সমাগম কিছুটা কম গেলেও সন্ধ্যার দিকে আবারো বেড়েছে ক্রেতাদের পদচারণা। হাটে পশুর পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকায় দরদাম করেই পছন্দের পশুটি কিনে বাড়ি ফিরছেন ক্রেতারা। তবে বড় গরুর চেয়ে ছোট ও মাঝারি আকারের গরুর প্রতি ক্রেতাদের আগ্রহ বেশি দেখা গেছে।

এবার চাহিদার শীর্ষে আছে দেশি জাতের ছোট আকারের গরু। শুরু থেকে বেশ চড়া দামেই বিক্রি হচ্ছিল এসব গরু। শেষ দিনে এসে আগের দামের চেয়ে কিছুটা সরে এসেছেন বিক্রেতারা।

অনেকে অভিযোগ করলেন, অতি মুনাফার আশায় কিছু মৌসুমী গরু ব্যবসায়ী অতিরিক্ত দর হাঁকছেন।

সিলেট নগরীর কয়েকটি হাট ঘুরে দেখা গেছে সেগুলোতে গরুর সংখ্যা কমে গেছে। একইসাথে এসব হাটে ক্রেতাদের সংখ্যাও গতকালের চেয়ে কম। অন্যদিকে ঈদের আগেরদিন ভীড় জমতে শুরু করেছে কাজিরবাজার গরুর হাটে। কাজিরবাজার এলাকার অনেক রাস্তায় গরু বিক্রি হতে দেখা গেছে।

গতবছর কুরবানির ঈদে শেষ রাতে অনেককেই গরু না কিনে ফিরতে হয়েছে। আবার অনেকে কিনেছিলেন চড়া দামে। তবে একই পরিস্থিতি এ বছর হবে না বলে ধারণা অনেকের। ক্রেতা ও বিক্রেতারা উভয়ে হাট থেকে স্বস্তি নিয়ে ফিরতে পারবেন।

এদিকে হাটে আসা ক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তাদের অনেকেই রাতের শেষ দিকে কুরবানির পশু কিনবেন। কারণ তখন বিক্রেতারা দামে ছাড় দেবেন বলে আশা তাদের।

অন্যদিকে বিক্রেতারাও আশা করছেন, এবার কুরবানির পশু তেমন অবিক্রিত থাকবে না।

Sharing is caring!

Loading...
Open