“বঙ্গবন্ধু ছিলেন সাংবাদিকবান্ধব নেতা”

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩ তম মৃত্যুবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভায় বক্তারা বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি। তিনি শুধু বাংলাদেশের আপামর জনগণের নেতাই নন; তিনি বিশ্বের অন্যতম মহান নেতা। তাঁর কীর্তি ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণোজ্জ্বল। তিনি ছিলেন সাংবাদিকবান্ধব নেতা। সাংবাদিকদের প্রতি ছিল তাঁর অসামান্য ভালোবাসা আর শ্রদ্ধাবোধ। সিলেটে তাঁর অনেক স্মৃতি রয়েছে। এগুলো যথাযথভাবে রক্ষণাবেক্ষণের জন্য সরকারকে আরোও উদ্যোগী হওয়া প্রয়োজন।

বুধবার বেলা সাড়ে ১১ টায় সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের উদ্যোগে জিন্দাবাজারস্থ নেহার মার্কেটে ক্লাব মিলনায়তনে এ অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন।

সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি তাপস দাশ পুরকায়স্থের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শাহ্ দিদার আলম নবেলের পরিচালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সাংবাদিক আল-আজাদ, সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি মনিরুজ্জামান মনির, ক্লাবের কার্যনির্বাহী পরিষদের সাবেক সদস্য হাসিনা মহিউদ্দীন।

বক্তারা আলোচনায় আরোও বলেন, আপোসহীন সংগ্রামী নেতৃত্ব আর কুসুম কোমল হৃদয় ছিল মুজিব চরিত্রের বৈশিষ্ট্য। যদি বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হতো তাহলে স্বাধীন বাংলাদেশ আমরা পেতাম না। তাঁর জন্ম না হলে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার চিন্তাও আমরা করতে পারতাম না। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশ স্বাধীনতা করার মাধ্যমে সেই লক্ষ্যে কিন্তু আমরা এগিয়ে যাচ্ছিলাম। কতিপয় কুচক্রি বিপথগামী সেনা সদস্যদের নিয়ে ষড়যন্ত্রকারীরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে মনে করেছিল তাঁর যে চেতনা সেটা বোধ হয় বিনাশ হয়ে গেল। কিন্তু চেতনার কখনো মৃত্যু হয় না।

এসময় উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের সহ-সভাপতি সাত্তার আজাদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. নাসির উদ্দিন, ক্রীড়া ও সংস্কৃতি সম্পাদক মো. ওলিউর রহমান, তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক মিসবাহ উদ্দীন আহমদ, পাঠাগার সম্পাদক কাইয়ূম উল্লাস, কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য এস এম সুজন, মো. আলী আকবর চৌধুরী, প্রেসক্লাব সদস্য আশরাফ চৌধুরী রাজু, রফিকুল ইসলাম কামাল, দিব্য জ্যোতি সী প্রমুখ।—বিজ্ঞপ্তি।

Sharing is caring!

Loading...
Open