শ্রীমঙ্গলে ট্যুরিস্ট পুলিশ সাব-জোন এর পরিচ্ছন্ন কর্মীর উপর হামলা

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশ শ্রীমঙ্গল সাব-জোন এর পরিচ্ছন্ন কর্মীর উপর হামলা করেছে দুর্বৃত্তরা। জানা যায় পূর্ব বিরোদের জেরে গত ১০ আগষ্ট শুক্রবার বিকেলে বিজিবি সেক্টর শ্রীমঙ্গল এর পশ্চিম পাশে মুসলিমবাগ খেলার মাঠে আমি ফুটবল খেলা দেখতে গেলে আউট সোর্সিং নিয়োগ প্রাপ্ত ৪র্থ শ্রেীণী কর্মচারী পরিচ্ছন্ন কর্মী, ট্যুরিস্ট পুলিশ শ্রীমঙ্গল সাব-জোন মৌলভীবাজার এর র্কমরত মোঃ আসাদুজ্জামান এর উপর কয়েজন লোক এসে হামলা চালায়। এ হামলায় সে গুরুতরভাবে আহত হয় তাৎক্ষণিক তাকে শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্ব্যাস্থ্য কেন্দ্রে প্রেরন করা হয়।

এ ঘটনায় সবুজ মিয়া(২১), পিতা-মাইনুল ইসলাম, সজীব মিয়া(২০), পিতা-জালাল মিয়া(বিদেশী), ফারুক মিয়া(২২), পিতা-জলিল পাটোয়ারি সর্ব সাং দক্ষিণ জালালিয়া রোড, থানা শ্রীমঙ্গল, জেলা মৌলভীবাজার সহ অজ্ঞাতনামা আরো ০৪/০৫ জনকে আসামী করে শ্রীমঙ্গল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলা নং ৭/১৮ তারিখ-১০/০৮/২০১৮খ্রিঃ ধারা ১৪৩/৩২৩/৩২৬/৩০৭।

ট্যুরিস্ট পুলিশ শ্রীমঙ্গল সাব-জোন এর পরিচ্ছন্ন কর্মী আসাদুজ্জামান জানায় আমার বাসার পার্শ্ববর্তী উল্লেখিত আসামিগণ বিভিন্ন অসামাজিক কর্মকান্ডে লিপ্ত থাকে। আমার বাসা হইতে অফিসে আসা যাওয়ার পথে বিভিন্ন বিষয় নিয়া বিভিন্ন সময় তাহাদের সহিত তর্ক-বিতর্ক হয়। উক্ত পূর্ব বিরোদের জেরে গত শুক্রবার বিকেলে বিজিবি সেক্টর শ্রীমঙ্গল এর পশ্চিম পাশে মুসলিমবাগ খেলার মাঠের উত্তর-পূর্ব কোণে দাড়াইয়া খেলা দেখিতেছিলাম। হঠাৎ সবুজ মিয়া (২১), সজীব মিয়া(২০), পিতা-জালাল মিয়া (বিদেশী) ফারুক মিয়া(২২) সহ সাথে আরো ০৪/০৫ জন মিলে হাতে চাকু, লাঠি, খেলার মাঠের ফ্লাগ ষ্ট্যান্ড নিয়া আমাকে আক্রমণ করে। প্রাণে হত্যার উদ্দেশ্যে আমার মাথায় আঘাত করলে মারাত্মক রক্তাক্ত জখম হয়। সাথে সাথে আসামি সজীব মিয়া ফ্লাগ ষ্ট্যান্ড নিয়া আমার বুক লক্ষ্য করে প্রাণে হত্যার উদ্দেশ্যে ঘাই মারলে উক্ত ঘাই আমার বাম হাতের বুকের নিচে পড়ে মারাত্মক রক্তাক্ত কাটা জখম হয়। ঐ সময় উক্ত আসামীগন সহ অজ্ঞাতনামা ০৪/০৫ জন আসামী ফ্লাগ ষ্ট্যান্ড ও বাঁশের লাঠি দিয়া আমার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় এলোপাতারি বাইরাইয়া মারাত্মক রক্তাক্ত ও নীলা ফোলা জখম হয়। আমি তাদের আক্রমন হইতে প্রাণ বাচানোর উদ্দেশ্যে পার্শ¦বর্তী লোকদের সম্মুখে চিৎকার করিলে সাক্ষীগণ দৌড়াইয়া আসিয়া বিবাদীদের কবল হইতে আমাকে প্রাণে রক্ষা করিয়া তাৎক্ষণিক নিকটস্থ শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ নিয়া ভর্তি করে। আমি বর্তমানে শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ ভর্তি আছি। আমার শরীরে ও মাথায় ১৪ টি সেলাই লাগে।

এব্যাপারে মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা শ্রীমঙ্গল থানার এসআই মোঃ আবুল খায়ের জানান আসামীরা পলাতক আছে। আমরা আসামীদের গ্রেফতার করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

Sharing is caring!

Loading...
Open