সিলেটে হিংসাত্মক রাজনীতিই কেঁড়ে নিলো রাজুর প্রাণ……..

নিজস্ব প্রতিবেদক :: সিলেটে ছাত্রদল নেতা ফয়জুল হক রাজুকে খুন করা হয়েছে পরিকল্পিতভাবে। একটি ‘লাঞ্ছনার’ ঘটনায় ‘প্রতিশোধ নিতে’ হিংসাত্মক হয়ে এবং ছাত্রদলের কমিটি নিয়ে বিদ্রোহী পক্ষের নেতৃত্বে থাকায় খুন করা হয়েছে তাকে। এমন অভিযোগ সিলেটে ছাত্রদলের বিদ্রোহী নেতাদের। তাদের অভিযোগ, সিলেটে ছাত্রদলের কমিটি পক্ষের নেতাকর্মীরাই খুন করেছেন রাজুকে। তবে এমন অভিযোগ অস্বীকার করেছেন কমিটির নেতারা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ফয়জুল হক রাজু সিলেট মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সহ-প্রচার সম্পাদক ছিলেন। নতুন কমিটিতে তিনি সাধারণ সম্পাদক পদপ্রত্যাশী ছিলেন। একসময় জেলা ছাত্রদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রকিব চৌধুরীর গ্রুপের সাথে জড়িত ছিলেন রাজু। তাকে জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক পদ পেতে সহায়তার আশ্বাস দিয়েছিলেন রকিব। কিন্তু গত ১৩ জুন রাতে ঘোষিত কমিটিতে সাধারণ সম্পাদক পদ পান দেলোয়ার হোসেন দিনার; কোন পদ জুটেনি রাজুর। পদ না পেয়ে আব্দুর রকিব চৌধুরীর গ্রুপ থেকে সরে যান রাজু। তিনি কমিটি প্রত্যাখ্যানকারী ছাত্রদল নেতাদের সাথে যোগ দেন। ওই বিদ্রোহী পক্ষের নেতৃত্বে থাকা তিন-চার নেতার একজন ছিলেন রাজু। এতে ক্ষুব্ধ হন আব্দুর রকিব।

ছাত্রদলের বিদ্রোহী নেতারা জানান, গত ৯ জুলাই সিলেটে সফরে থাকা বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর কাছে ছাত্রদলের কমিটি নিয়ে অভিযোগ দিতে যান বিদ্রোহী নেতাকর্মীরা। ওই সময় নগরীর উপশহরে প্রবেশপথের মুখে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। সেদিন বিদ্রোহীদের সাথে ছিলেন ফয়জুল হক রাজু। এরপর গত ৩০ জুলাই সিলেট সিটি নির্বাচনের পর রাতে সিলেট আঞ্চলিক নির্বাচন কার্যালয় থেকে বাসায় ফেরার পথে বিএনপি নেতা আরিফুল হক চৌধুরীর গাড়িতে ওঠেন জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন দিনার ও সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রকিব চৌধুরী। ওই সময় তাদের গাড়ি থেকে নামিয়ে দেন রাজু। এতে ক্ষুব্ধ হন তারা।

সিলেট জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক (পদত্যাগকারী) সোহেল ইবনে রাজা গণমাধ্যমকে বলেন, ‘রকিব গ্রুপ সামনে আরিফ ভাইয়ের পক্ষে থাকলেও পেছনে বিরোধী ছিল। ফয়জুল হক রাজু পুরো নির্বাচনে আরিফ ভাইয়ের পক্ষে কাজ করে। গত ৩০ জুলাই নির্বাচনের পর রাতে আরিফ ভাই বাসায় ফেরার পথে তার গাড়িতে ওঠেন রকিব। এতে রাজু মনে মনে আঘাত পায়। সে তখন বলেছিল, নির্বাচনে আমরা কষ্ট করেছি, আর গাড়িতে তোমরা কেন আগে আসবে। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়।’

জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি (পদত্যাগকারী) নজরুল ইসলাম বলেন, ‘আব্দুর রকিব চৌধুরী ও দেলোয়ার হোসেন দিনারের নেতৃত্বে রাজুকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে।’

তবে নিজেদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ শুরু থেকেই অস্বীকার করছেন জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন দিনার ও সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রকিব চৌধুরী।

এ বিষয়ে সিলেট জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আলতাফ হোসেন সুমন ও মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি সুদীপ জ্যোতি এষ বলেন, ‘রাজু খুনের সাথে কমিটি নিয়ে বিরোধের কোন সম্পর্ক নেই। ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে একটি পক্ষ কমিটির ওপর দায় চাপানোর চেষ্টা করছে।’

Sharing is caring!

Loading...
Open