শেখ হাসিনার সরকার নারীদের স্বাবলম্বি করতে কাজ করছেন : সামাদ চৌধুরী এমপি

সিলেট-৩ আসনের এমপি, প্রতিরক্ষ মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার দেশকে দারিদ্রমুক্ত করার লক্ষ্যে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। ফলে দেশের হত দরিদ্র লোকদের জীবন মান উন্নত হয়েছে। বিশেষ করে নারী সম্মান ও মর্যাদা বৃদ্ধি করে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করেছেন। বাংলাদেশকে একটি উন্নতশীল দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে প্রধানমন্ত্রী দক্ষতার সাথে কাজ করে যাচ্ছেন। দেশের বেকর যুব শক্তিকে দক্ষ মানব শক্তিতে রূপান্তর করতে বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ ও ঋণ সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। প্রত্যেক নাগরিকের উচিত নিজেকে স্বাবলম্বি করে গড়ে তোলা। নিজে স্বাবলম্বি হলে দেশ, সমাজ ও পরিবার উপকৃত হয়। সরকারের এই সুযোগ সুবিধা গ্রহনের মাধ্যমে নিজেরকে প্রতিষ্ঠিত করার আহবান জানান।

এমপি মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী গত শুক্রবার দিনব্যাপী দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জ উপজেলার মোট ২১টি ইউনিয়নে “পল্লী কর্মসংস্থান ও সড়ক রক্ষণাবেক্ষণ কর্মসূচী-২ (আরইআরএমপি-২)” শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় জিওবি অর্থায়নে বাস্তবায়নাধীন ৩টি উপজেলার ২১৬ জন নারী কর্মীদের সঞ্চয়কৃত অর্থের চেক ও সনদ প্রদান পৃথক পৃথক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। জন প্রতি ৭৪ হাজার টাকা করে মোট দেড় কোটি টাকার চেক বিতরণ করা হয়।

যথাক্রমে দক্ষিণ সুরমা উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, বালাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী আব্দুল হক ও ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী রমাকান্ত সভাপতিত্বে পৃথক পৃথক অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর সিলেটের নির্বাহী প্রকৌশলী এ.এস.এম মহসীন, বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদাল মিয়া, ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা সৈয়দ আলী আজগর, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা সাইফুল আলম। বক্তব্য রাখেন দক্ষিণ সুরমা উপজেল প্রকৌশলী আফছর আহমেদ, বালাগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী মাহমুদুল হাসান, ফেঞ্চুগঞ্জ থানার ওসি নাজমুল ইসলাম, বালাগঞ্জ থানার ওসি এস.এম জালাল, বোয়ালজুড় ইউপি চেয়ারম্যান আনহার মিয়া, পূর্ব গৌরীপুর ইউপি চেয়ারম্যান হিমাংশু রঞ্জন দাস, বালাগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মুমিন, সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী ওয়াজিবুর রহমান, বালাগঞ্জ উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী এস.এম আনোয়ারুল হক, দাউদপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম আলম, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা বেদবতী মিস্ত্রি, সমাজসেবা কর্মকর্তা আব্দুল মুন্তাকিম, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা ফখরুল ইসলাম, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডা. শাহরিন সুলতানা, জনস্বাস্থ্য উপ-প্রকৌশলী আজাদ কাজী, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা সুব্রত কর, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আকরাম হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আউয়াল কয়েছ, উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল মিয়া, আওয়ামীলীগ নেতা আজিজুর রহমান লকুস, নাসির উদ্দিন, শাহ ছমির উদ্দিন, আহমদ হোসেন খোকন, সেলিম আহমদ মেম্বার, বালাগঞ্জ যুবলীগের আহবায়ক রফিকুল আলম, নারীদের পক্ষে রোজিনা বেগম।

পরে প্রধান অতিথি দক্ষিণ সুরমায় মহিলা বিষয়ক অফিসের মধ্যেমে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত নারীদের মধ্যে সেলাইমেশিন, নগদ অর্থ ও সনদপত্র বিতরণ করেন।

এদিকে, শিক্ষার্থীদের লেখাপাড়ায় উৎসাহিত করতে অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি আইসিটি ভবন নির্মান, কম্পিউটার ল্যাব, মাল্টিমিডিয়া ক্লাস সহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করেছে। শিক্ষার্থীদের উচিত লেখাপড়ার প্রতি মনোযোগী হয়ে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে উঠতে হবে। সরকারের উন্নয়ন অগ্রযাত্রার অংশ হিসেবে দক্ষিণ সুরমা ডিগ্রি কলেজকে সরকারীকরণ তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। আমি গভর্নিং বডির সভাপতির দায়িত্ব নেয়ার সময় মাত্র ৩১৭ জন শিক্ষার্থী ছিল। বর্তমানে তা বেড়ে ৮,৫০০ শিক্ষার্থী এ কলেজে লেখাপড়া করছে। কলেজে ৯টি বিষয়ে অনার্স চালু করা হয়েছে। কলেজটিকে আরো উন্নত করতে শহীদ মিনার নির্মাণ সহ বিভিন্ন কাজ আমি চালিয়ে যাচ্ছি। ইনশাআল্লাহ একদিন এ কলেজটি পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত হবে।

এমপি মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী গতকাল কাল শনিবার সকালে ১ কোটি ৮৩ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত দক্ষিণ সুরমা কলেজের দেশরতœ শেখ হাসিনা আইসিটি ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

দক্ষিণ সুরমা কলেজের অধ্যক্ষ শামসুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও ইংরেজী বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শ্যামলী চক্রবর্তীর পরিচালনায় কলেজ ক্যাম্পাসে আব্দুল জব্বার জলিল অডিটোরিয়ামে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জালালপুর ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ আওলাদ হোসেন, দক্ষিণ সুরমা থানার ওসি খায়রুল ফজল, শিক্ষা প্রকৌশলী আব্দুর রব, কলেজ গভর্নিং বডির সদস্য ড. আর.কে ধর। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সহকারী অধ্যাপক সাব্বির আহমদ ও মুহিবুর রহমান। এছাড়াও অনুষ্ঠানে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা উস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন গিলমান আলী, গীতা পাঠ করেন প্রভাষক দীপক চন্দ।–বিজ্ঞপ্তি

Sharing is caring!

Loading...
Open