বিশ্বম্ভরপুরে খুঁটিতে বেঁধে গৃহবধুকে নির্যাতনের ঘটনায় ৫ জনকে আসামী করে মামলা,আটক ১

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:: সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় খুঁটিতে বেঁধে গৃহবধুকে শারিরিক নির্যাতনের গঠনায় নির্যার্তিতার স্বামী ৫জনকে আসামী করে। মামলা দায়েরর পর বিশ্বম্ভরপুর থানা পুলিশ গঠনার সাথে জরিত থাকার অভিযোগে বুধবার সকালে কাজল মিয়া নামে একজন কে আটক করেছে। এ বিষয়ে বিশ্বম্ভরপুর থানার ওসি মোল্লা মুনির হোসেন মামলা দায়ের ও আটকের সত্যতা নিশ্চিত করেন।

নির্যাতিতা গৃহবধূর স্বামী সেলিম মিয়া জানায়,আমার স্ত্রী আকলিমা গত রোববার(৫জুলাই) আমলগ্রহনকারী ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে প্রতিপক্ষের বিরোদ্ধে মামলা দায়ের করায় আমার স্ত্রীকে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে খুটিতে বেধে মারপিঠ করেছে। মামলার দায়ের করেছি। আমি ন্যায় বিচার চাই। তবে এ বিষয়ে পুলিশ কনস্টেবল শফিকুল ইসলাম ও তার পরিবার জানায়,গৃহবধূ আকলিমা-পুলিশ সদস্যের মা সুফিয়া খাতুনকে পুলিশ সদস্যের বাড়িতে গিয়ে মারপিঠ করে। পরে আকলিমার আত্মীয়রাই তাকে মারধর করে। বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় খুঁটিতে বেধে নির্যাতিতা গৃহবধু আকলিমা বেগম (২৬) উপজেলার ধনপুর ইউপির পশ্চিম ছাতারকোনা গ্রামের সেলিম মিয়ার স্ত্রী।

উল্লেখ্য,গত মঙ্গলবার (৭আগস্ট) সকাল সাড়ে নয়টার সময় উপজেলার ছাতার কোন গ্রামে পুলিশ সদস্যের পরিবার ও ওই গৃহবধূর পরিবারের মামলা মোকদ্দমার বিরোধ কে কেন্দ্র করে পুলিশ সদস্যের চাচা আব্দুল কদ্দুছের বাড়ির উঠানে পুলিশ সদস্যের পিতা আব্দুল মোতালেব (৬০) ও আইন উদ্দিনের ছেলে আব্দুল মান্নানসহ অন্যান্যরা ওই গৃহবধূর বসত ঘর থেকে তাকে ধরে এনে খুঁটিতে বেঁধে বেধরক মারপিঠ করে। খবর পেয়ে বিশ্বম্ভরপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল গেলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। আশংকা জনক অবস্থায় ঐ ওই গৃহবধূকে উদ্ধার করে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

Sharing is caring!

Loading...
Open