শ্রেণী কক্ষে ডুকে সভাপতি লাঞ্চিত করলেন শিক্ষিকাকে…….!

দিরাই (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি ::   সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে এবার শ্রেণীকক্ষে ডুকে শিক্ষার্থীদের সামনেই বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি লাঞ্চিত করলেন এক শিক্ষিকাকে। এ ঘটনায় দিরাই উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা ফুঁসে উঠেছেন।

বৃহস্পতিবার শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জন করে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি পদ থেকে অপসারণ ও ঘটনার শাস্তির দাবি জানিয়ে বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা ওই সভাপতির বিরুদ্ধে সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা) আসনের সংসদ সদস্যসহ সংশ্লিষ্টদের নিকট লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, দিরাই উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আবদুল হক শ্রেণীকক্ষে ডুকে করে পাঠদানরত অবস্থায় বুধবার এক শিক্ষিকাকে অশালীন ভাষায় গালিগালাজ করে লাঞ্চিত করার পর ফের ওই শিক্ষিকাকে দেখে নেয়ার হুমকি প্রদান করেন।

অভিযোগ রয়েছে ওই সভাপতি ইতিপুর্বে কয়েকদফা বিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সাথেও এমন অসদাচরণ করে আসছেন।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আবদুল হক বৃহস্পতিবার রাতে তার বিরুদ্ধে আনীত সকল অভিযোগ মিথ্যা দাবি করে পাল্টা ওই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বললেন, একটি দরিদ্র পরিবারের ৮ম শ্রেণীতে পড়ুয়া স্কুল ছাত্রীকে পরীক্ষার ফির টাকা না দিতে পারায় ওই শিক্ষিকা বকাঝকা করে শ্রেণী কক্ষ থেকে বের করে দিলে বুধবার বিদ্যালয়ে গিয়ে আমি কেবল প্রতিবাদ করেছি, শিক্ষিকাকে গালি গালাজ বা লাঞ্চিত করার অভিযোগ সম্পুর্ন মিথ্যা।’

দিরাই উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে লাঞ্চনার শিকার শিক্ষিকা তার বিরুদ্ধে আনা সভাপতির অভিযোগ অস্বীকার করে বললেন, আমি শুধু মাত্র ওই ছাত্রীকে অর্ধবার্ষিক পরীক্ষার ফিসহ বিদ্যালয়ের আনুসাঙ্গিক অন্যান্য টাকা পরিশোধের কথা বলেছি, তাকে বকাঝকা বা শ্রেণীকক্ষ তেকে বের করে দেইনি, ওই ছাত্রী ইচ্ছে করেই শ্রেণী কক্ষ থেকে বেড়িয়ে গেছেন।

দিরাই উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাফর ইকবাল বৃহস্পতিবার রাতে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সভাপতির এমন আচরনে আমরা শিক্ষক সমাজ অপমাণিত হয়েছি,আজ আমাদের স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা এক হয়ে সভাপতির পদ থেকে আবদুল হকের অপসারণ ও তার শাস্তির দাবিতে স্থানীয় সংসদ সদস্যসহ উপজেলা প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছি।

সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা) আসনের সংসদ সদস্য ড. জয়াসেন গুপ্তা অভিযোগ পাওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সহ সংশ্লিস্ট সকলকে তদন্ত করে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ প্রদান করেছি।

Sharing is caring!

Loading...
Open