খালেদা জিয়া সিলেটবাসীকে সালাম দিয়েছেন: কর্ণেল অলি

নিজস্ব প্রতিবেদক :: এলডিপির চেয়ারম্যান কর্ণেল (অব.) অলি আহমদ বলেছেন, ‘১৯৭১ সালের ১৫ ডিসেম্বর মেজর জিয়া এবং আমি দুজনে এই শহরে প্রবেশ করি। জেড ফোর্স এই শহরকে মুক্ত করে। অনেক ত্যাগের বিনিময়ে দেশ স্বাধীন করেছি। আমরা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের লোক। এ কথা বলার উদ্দেশ্য, আপনাদের সাথে আমাদের আত্মার সম্পর্ক রয়েছে। আপনাদের সাথে এই বিপদের দিনে পাশে দাঁড়ানো আমার কর্তব্য। আমাদের অকুতোভয় নেত্রী খালেদা জিয়া অন্যায়ভাবে জেলে আবদ্ধ। তিনি তার পক্ষ থেকে সিলেটবাসীকে সালাম দিয়েছেন। আপনাদের সহমর্মিতা কামনা করেছেন।’

বুধবার বিকেলে সিলেট নগরীর কাজীটুলাস্থ বিএনপির মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীর প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন কর্ণেল অলি।

তিনি বলেন, ‘আমি এসেছি এটা বলার জন্য, এখানে ভুলভ্রান্তি বা ভুল বোঝাবুঝির অবকাশ নাই। জামায়াত ছাড়া বাকি ১৯ দল ঐক্যবদ্ধভাবে আরিফকে প্রার্থী ঘোষণা করেছে। আমি আরিফকে ভোট দেয়ার জন্য অনুরোধ করবো।’

বিএনপির মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীকে পাশে নিয়ে কর্ণেল অলি আরও বলেন, ‘সিটি নির্বাচনে যদি সুষ্ঠু ভোট না হয়, সুন্দর ভোট যদি না হয়, জনগণ যদি তাদের ভোট দিতে না পারে, হয়তো বিশদলীয় জোট আগামী জাতীয় নির্বাচনে যাবে না। সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ হেরে গেলেও সরকারের কিছু আসে যায় না। সরকারকে জনগণকে আস্থায় নিয়ে আসতে হবে। দেশের জনগণ সরকারকে বিশ্বাস করে না। এটা সরকারের জন্য ভালো না। জনগণ ক্রমেই রাজনীতিবিমুখ হচ্ছে। তাদেরকে রাজনীতিমুখী করতে হবে।’

২০ দলীয় জোটের সঙ্গী এলডিপির চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘আমরা আশা করবো, সরকার নমনীয় হবে, জনগণের মতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হবে। দেশের মানুষ বিশ্বাস করে, এই সরকারের আমলে দিনের বেলা ভোট হয় না, রাতের বেলা ভোট হয়। কয়েক মাস আগে গাজীপুরে খুলনা স্টাইলে নির্বাচন হয়েছে। এটা খুলনা স্টাইল বলা হয়, গাজীপুর স্টাইল বলা হয়। অর্থাৎ, পুলিশ ভোটগুলো কাস্টিং করার ব্যবস্থা নেয়। বিরোধীদলের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে। সিলেটেও ইতিমধ্যে এটা সংগঠিত হয়েছে। নির্বাচন কমিশন স্বাধীনভাবে কাজ করছে না, তারা সরকারের অঙ্গসংগঠন হিসেবে কাজ করছে। এই নির্বাচনে ইসি কর্মকা- বিবেচনা করবো, তারা জনগণের আশা-আকাক্সক্ষা পূরণ করছে নাকি দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের সাথে বেইমানি করছে। আমরা দেশকে স্বাধীন করেছিলাম, মানুষ যেন ভোট দিতে পারে, সুখে-শান্তিতে ঘরে থাকতে পারে। কিন্তু এখন মানুষের মনে শান্তি নাই।’

বিরোধীদলের ওপর নির্যাতন-নিপীড়ন বন্ধ করার দাবি জানান তিনি। একইসাথে ভোটের দিন ‘কাপুরুষের’ মতো ঘরে না থেকে ‘সুপুরুষের’ মতো কেন্দ্রে যেতে নেতাকর্মীদের আহবান জানান কর্ণেল অলি।

এসময় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান, এলডিপির যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব মুনতাসির আলী, বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হাসান জীবন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক কলিম উদ্দিন মিলন, কেন্দ্রীয় সহ-সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, কেন্দ্রীয় সদস্য ও জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কাহের শামীম, কেন্দ্রীয় সদস্য ডা. শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী, মিজানুর রহমান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আহাদ খান জামাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open