যেসব কারণে সিলেট শিক্ষা বোর্ডের ফল বিপর্যয়……..

ডেস্ক রিপোর্ট:: সিলেট শিক্ষা বোর্ডের অধীনে উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এেইচএসসি) পরীক্ষায় এবার পাসের হারের সূচক কমেছে। তবে কিছুটা বেড়েছে জিপিএ-৫ প্রাপ্তির সংখ্যা। ফলাফলের পাসের হারের অবনতির কারণ হিসেবে চলতি বছরে অভিন্ন প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা নেওয়ায় ইংরেজি, আইসিটি, পরিসংখ্যান ও একাউন্টিং বিষয়ে বেশি ফেল করাকে চিহ্নিত করছেন সংশ্লিষ্টরা। এছাড়া মানবিকের ফল বিপর্যয়ের কারণেও সার্বিক পাসের হারে প্রভাব পড়েছে বলে মনে করছেন তারা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক ফলাফল ঘোষণা করা হয়। এ বছর সিলেটে পাসের হার ৬২ দশমিক ১১ শতাংশ। গতবার পাসের হার ছিল ৭। ফলে এবার কমেছে ৯ দশমিক ৮৯ শতাংশ।

ফলাফল ঘোষণার পর পাসের হার কমার পেছনে কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. কবির আহমদ জানান, ‘এ বছর ইংরেজী ও আইসিটি বিষয়ে শিক্ষার্থীরা আশানরুপ ভাল করতে পারেনি। এ কারণে বোর্ডের পাসের হার কমেছে।’

তবে সার্বিক ফলাফলে বোর্ড কর্তৃপক্ষ সন্তুষ্ট বলেও উল্লেখ করেন তিনি। তার মতে, পরীক্ষায় পাসের হার কমলেও শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধি পেয়েছে।

ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত বছর ইংরেজীতে ৮৩ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করে। এবার এ বিষয়ে এবার পাস করেছে ৭০ দশমিক ৯৬ শতাংশ। অর্থ্যা এবছর ইংরেজী বিষয়ের পরীক্ষায় অংশ নেওয়া ৬৫ হাজার ৩৬৩ শিক্ষার্থীদের মধ্যে ১৮ হাজার ৯৮২জনই অকৃতকার্য হয়েছে। একই ভাবে আইসিটিতে গতবার ৯২ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস হলেও এবার পাসের হার ৮৮ দশমিক ২১ শতাংশ।

এছাড়া পরিসংখ্যানে ৮৫ দশমিক ৬৪ শতাংশ ও একাউন্টিং বিষয়ে ৮৬ দশমিক ৩১ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছে।

তাছাড়া অন্যান্য বিষয়গুলোর মধ্যে বাংলায় পাসের হার ৯২ দশমিক ৫৭ শতাংশ, অর্থনীতিতে ৯৮ দশমিক ১৭ শতাংশ, সমাজবিজ্ঞানে ৯৮ দশমিক ৪৫ শতাংশ, যুক্তিবিদ্যায় ৯৪ দশমিক ৭৪ শতাংশ, প্রাণীবিদ্যায় ৯৮ দশমিক ২৫ শতাংশ, উচ্চতর গণিতে ৮৬ দশমিক ৩১ শতাংশ, ইসলাম ধর্ম শিক্ষায় ৯৯ দশমিক ৭৪ শতাংশ, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতিতে ৯৭ দশমিক ৫১ শতাংশ এবং বাণিজ্য বিভাগের প্রধান বিষয়গুলোতে পাসের হার ৯৮ শতাংশের উপরে রয়েছে।

মানবিকে ফল বিপর্যয়: বিভাগ ভিত্তিক ফলাফলে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে ১২ হাজার ১৪৫জন অংশ নিয়ে পাস করেছে ১০ হাজার ১০০ জন। তাদের মধ্যে ছেলে ৫ হাজার ১৮৭ জন, মেয়ে ৪ হাজার ৯১৩ জন। পাসের হার ৮৩ দশমিক ১৬ শতাংশ।

মানবিক বিভাগ থেকে ৪৭ হাজার ১১৪ জন অংশ নিয়ে পাস করেছে ২৬ হাজার ৩জন। তাদের মধ্যে ছেলে ৯ হাজার ৫৫৫ জন, মেয়ে ১৬ হাজার ৪৪৮ জন। পাসের হার ৫৫ দশমিক ১৯ শতাংশ।

ব্যবসা শিক্ষা বিভাগ থেকে ১১ হাজার ৭৮৩জন অংশ নিয়ে পাস করেছে ৮ হাজার ২৪ জন। তাদের মধ্যে ছেলে ৪ হাজার ৪৪৪ জন, মেয়ে ৩ হাজার ৫৮০ জন। পাসের হার ৬৮ দশমিক ১০ শতাংশ।

Sharing is caring!

Loading...
Open