“ওসমানীনগরে বাল্য বিয়ে থেকে রক্ষা পেল মাদ্রাসা ছাত্রী”

ওসমানীনগর প্রতিনিধি ::   সিলেটের ওসমানীনগরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আনিছুর রহমানের হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে মাদ্রাসা শিক্ষার্থী জনি। সে উপজেলার উছমানপুর ইউনিয়নের চান্দরগাঁও  গ্রামের দুদু মিয়ার মেয়ে এবং স্থানীয় মাদারবাজার এফইউ সিনিয়র মাদ্রাসার ছাত্রী। সে ওই মাদ্রাসার শিক্ষার্থী হিসাবে বিগত জেডিসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে  অকৃতকার্য হয়েছিল।

শুক্রবার উপজেলার উসমানপুর ইউনিয়নে চান্দর গাও গ্রামে ঘটনাটি ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দুদু মিয়া তার অপ্রাপ্ত বয়স্ক মেয়ে জনি বেগম (১৫) কে শুক্রবার  আনুষ্ঠানিক ভাবে পার্শ্ববর্তী ধনপুর গ্রামের  করিম  মিয়া ড্রাইভারের ছেলে রাকিবের সাথে বিয়ে দিতে যাচ্ছিলেন। খবর পেয়ে শুক্রবার সকালে ওসমানীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: আনিছুর রহমান বিয়ে বাড়িতে উপস্থিত হয়ে থানা পুলিশ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধির সহযোগিতায় বাল্য বিয়েটি বন্ধ করে দেন। বর রাকিবও অপ্রাপ্ত বয়স্ক বলে পুলিশ সূত্রে জানা যায়।

ওসমানীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.আনিছুর রহমান বলেন, বাল্য বিবাহমুক্ত ওসমানীনগর উপজেলায় বাল্য বিবাহের আয়োজনের খবর শুনে তাৎক্ষনিক এলাকায় গিয়ে বিয়ের আয়োজনটি বন্ধ করি। বাল্য বিবাহ একটি অপরাধ কোথাও এর আয়োজন হলে বিষয়টি তাঁকে জানানোর জন্য স্থানীয়দের প্রতি আহবান জানান তিনি।

Sharing is caring!

Loading...
Open