“গোলাপগঞ্জে ‘ভুয়া’ সনদে স্কুলের দপ্তরী নিয়োগের ঘটনায় এলাকায় তোলপাড়”

গোলাপগঞ্জ  প্রতিনিধি :: গোলাপগঞ্জে ভুয়া সনদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী নিয়োগের ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় শুরু হয়েছে তোলপাড়।

উপজেলার ভাদেশ্বর ইউনিয়নের তেরাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, উপজেলার ভাদেশ্বর ইউপির ৯২ নং তেরাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী নিয়োগের জন্য একই এলাকার রিয়াজ উদ্দিন, উছতার আলী, রহিম উদ্দিন, জুনেদ আহমদ ও রুহেল আহমদ আবেদন করেন। আবেদনে একই উপজেলার তেরাপুর গ্রামের মোঃ আব্দুল বারীর ছেলে রহিম উদ্দিন দরগাহ্ বাজার দাখিল মাদ্রাসার ৮ম শ্রেণি পাস সনদ জমা দেন। নিয়োগ কমিটি এ সনদ যাচাই-বাছাই না করে তাকে নিয়োগ প্রদান করেন।

এ নিয়ে ওই বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুর কাদির কালনসহ এলাকাবাসীর মধ্য দেখা দেয় চরম ক্ষোভ।

এলাকাবাসী জানান, নিয়োগপ্রাপ্ত রহিম উদ্দিন ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করলেও সে ৮ম শ্রেণীর সার্টিফিকেট প্রদান করে। দরগাহ্ বাজার দাখিল মাদ্রাসার দেয়া সার্টিফিকেট অনুযায়ী ২০০৩ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত তিনি অত্র প্রতিষ্ঠানে অধ্যায়নরত ছিলেন এবং ২০০৬ সালে তিনি বার্ষিক পরিক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন।

জানতে চাইলে দরগাহ্ বাজার দাখিল মাদ্রাসার সুপারিনটেনডেন্ট আবুল হোসেন জানান, এ সনদধারী ব্যক্তি আব্দুর রহিম এ মাদ্রাসার ছাত্র নয় এবং মাদ্রাসার রেজিষ্টার ভর্তি অনুযায়ী সে অত্র মাদরাসার অধ্যয়নরত ছাত্র ছিল না এবং এ সনদ তার মাদ্রাসার নয়।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুল হামিদ সরকার এ প্রতিবেদককে জানান, ভুয়া সনদে চাকুরীর বিষয়ে আমি অবগত নই। এ পরিক্ষার সময় আমি ছিলাম না। ভুয়া সনদের প্রমান পেলে আমরা যথাযথ ব্যবস্থা নেব।

স্কুল ম্যানেজিং কমিটি, শিক্ষার্থী ও অভিবাবকরা এ নিয়োগ বাতিলের দাবি জানান। এ দাবিতে একজোট হয়ে তারা এলাকায় এ নিয়োগের বিরোধীতা করে উপজেলা প্রশাসনের কাছে স্বারকলিপি দেয়া ছাড়াও এলাকায় মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছেন তারা। দাবি না মানলে করা হবে প্রতিবাদ সমাবেশের। স্থানীয় ভাদেশ্বর ইউপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আলা উদ্দিনের হস্তক্ষেপে শিক্ষার্থীরা ফের বিদ্যালয়ে যাওয়া আসা শুরু করেছেন।

এদিকে অভিযোগ উঠেছে ওই বিদ্যালয়ের দপ্তরী কাম প্রহরী দপ্তরীর যোগ্যতা ও সনদ যাচাই করেননি নিয়োগ কমিটি। স্থানীয়রা ওই দপ্তরীর শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদসহ সংশ্লিষ্ট কাগজ পত্র যাচাই-বাছাই করে নিয়োগ বাতিলের দাবি জানান।

Sharing is caring!

Loading...
Open