মেসিকে নিয়েই ফ্রান্সের যত ভয়

সুরমা টাইমস ডেস্ক:: তারা খেলবে ১১ জনের বিপক্ষে; কিন্তু ফ্রান্সের সাবধানতা বেশি শুধু একজনকে নিয়েই। আর্জেন্টিনার বিপক্ষে দ্বিতীয় রাউন্ডের ম্যাচ সামনে রেখে ফরাসি গোলরক্ষক স্টিভ মানদান্দার কথায় তো সেটিই বোঝা যায়, ‘আমরা জানি ওদের এমন একজন খেলোয়াড় আছে, যে কিনা সব কিছুই করতে সক্ষম।
’ সেই একজন কে? নিশ্চয়ই লিওনেল মেসির নামটা আর বলে দিতে হবে না।

শনিবার কাজানে অনুষ্ঠেয় নক আউট পর্বের ম্যাচে যে ফ্রান্স মেসিকে আটকানোর ব্রত নিয়েই নামবে, তাতেও আশ্চর্যের কিছু নেই। আলবিসেলেস্তেদের সাফল্য স্বপ্নের প্রাণ তো তিনিই। ধুঁকতে ধুঁকতে শেষ ষোলোর টিকিট পাওয়া আর্জেন্টিনা অধিনায়ক মঙ্গলবার নাইজেরিয়ার বিপক্ষে পেয়েছেন এই বিশ্বকাপে তাঁর প্রথম গোলের দেখা। যদিও ২-১ গোলের জয়ে জয়সূচক গোলটি এসেছে মার্কোস রোহোর পা থেকে। দারুণ স্বস্তিদায়ক জয়ে নক আউট পর্বে আসা দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরাও এবার চাইবে নিজেদের সেরা ছন্দে দেখা দিতে।

সে জন্য মেসিরও সেরা ছন্দে দেখা দেওয়া চাই। সেই সম্ভাবনার কথা মাথায় রেখেই দিদিয়ের দেশম সাজাচ্ছেন রণকৌশল। যার কিছুটা আঁচ পাওয়া গেল সংবাদ সম্মেলনে বলা মানদান্দার কথায়, ‘আমাদের খুব ভালোভাবে রক্ষণ সামলাতে হবে।
যদিও মেসির পক্ষে সব কিছুই করা সম্ভব। আমরা সেটি জানি এবং জানি বলেই সতর্কও। কারণ আমাদের দলের বেশ কিছু খেলোয়াড় আছে, যারা লা লিগায় মেসির সঙ্গে খেলেছে কিংবা ওর বিপক্ষে খেলেছে। ’

লা লিগায় প্রতিপক্ষকে দুমড়ে-মুচড়ে দেওয়া চেহারায় মেসিকে নিয়মিত দেখা গেলেও এ বিশ্বকাপে এখনো সেভাবে নয়। আর্জেন্টাইনভক্তদের চাওয়া কিন্তু সেটিই। যদিও অতিমাত্রায় মেসিনির্ভরতা নিয়ে ফুটবল বিশ্লেষকদের সমালোচনাও আছে আর্জেন্টিনাকে ঘিরে। তবে এই নির্ভরতাকে দোষের কিছু বলে মনে হয় না হার্নান ক্রেসপোর। আর্জেন্টিনার হয়ে ৬৪ ম্যাচে ৩৫ গোল করা এ সাবেক স্ট্রাইকার বরং মেসিনির্ভরতার মধ্যে যুক্তিই খুঁজে পান, ‘যখন আপনার দলে বিশ্বের সেরা খেলোয়াড় থাকবে, তখন তার ওপর নির্ভর করে থাকাটা খুবই যৌক্তিক। ’ তাঁর মতে মেসির ক্লাব দল বার্সেলোনাও এ নির্ভরতার বাইরে নয়, ‘বার্সেলোনাও মেসির ওপর নির্ভর করে। একই ব্যাপার দেখা যায় পর্তুগাল এবং রিয়াল মাদ্রিদের বেলায়ও। তারা নির্ভর করে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর ওপর। এই মানের খেলোয়াড় দলে থাকলে তার ওপর নির্ভর করা খুবই যৌক্তিক এবং স্বাভাবিক একটি ব্যাপার। ’

নাইজেরিয়া ম্যাচের আগে যা যা ঘটছিল, সেসবকে অবশ্য স্বাভাবিক বলে মনে হয়নি ক্রেসপোর। সুপার ইগলদের বিপক্ষে জয় তাই আর্জেন্টিনার জন্য ঘাম দিয়ে জ্বর ছাড়ার স্বস্তি নিয়ে এসেছে বলেও মনে করেন এ সাবেক স্ট্রাইকার, ‘এই জয়টি খেলোয়াড়দের জন্য ছিল পরম শান্তির। কারণ এর আগে যা ঘটছিল, তা স্বাভাবিক ছিল না। খেয়াল করলে দেখবেন দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত হওয়ার পর অনেক খেলোয়াড় কাঁদছিল। তার মানে ওরা প্রচণ্ড চাপ মাথায় নিয়ে খেলছিল। ’

ক্রেসপোর আশা, সেই চাপ আলগা হয়ে যাওয়াটাই সেরা ছন্দে ফিরিয়ে আনবে আর্জেন্টিনাকে, ‘আশা করছি ওই জয়টা ওদের হালকা করে দিয়েছে এবং পরের ম্যাচে ওরা নিজেদের সেরা খেলাটা খেলবে। ’ এবার চাপহীন ফুটবল খেলার কথা শোনা গেল ডিফেন্ডার ফেদেরিকো ফাসিওর মুখেও, ‘নাইজেরিয়ার বিপক্ষে জেতার পর আমরা এখন আরো আত্মবিশ্বাসী। আমরা জানি যে আমাদের দুর্দান্ত সব খেলোয়াড় আছে এবং আমাদের এর সুবিধাটা নিতে হবে। ’ অবশ্য নক আউটের প্রতিপক্ষও কম কঠিন নয়। এ বিশ্বকাপের অন্যতম ফেভারিট ফ্রান্সও অবশ্য এখনো সেরা চেহারায় দেখা দেয়নি। বরং তাদের খেলাও সমালোচিত হচ্ছে। প্রতিভাবান এক ঝাঁক খেলোয়াড় নিয়েও, বিশেষ করে ডেনমার্কের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করার পর মাঠে এমনকি দুয়োধ্বনিও শোনা গেছে। তবে আর্জেন্টিনার মতো তারাও নিশ্চয়ই নক আউট পর্বে নিজেদের পুরোপুরি মেলে ধরতে চায়। দুই দলই সেই চেহারায় থাকলে দারুণ জমজমাট ম্যাচই হওয়ার কথা। আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডার জিওভানি লা সেলসোরও তাই মত, ‘আমরা জানি যে শক্ত এক প্রতিপক্ষের সঙ্গেই খেলতে চলেছি আমরা। দারুণ সেই দলের বিপক্ষে কাজে লাগানোর অস্ত্র আমাদেরও আছে। সুতরাং আমার মনে হয় দুর্দান্ত এক ম্যাচই হবে সেটি। ’ যে ম্যাচে মেসির লা লিগার চেহারাটাও ভীষণ প্রত্যাশিত। ফোরফোরটু, গোলডটকম, টুইটার

Sharing is caring!

Loading...
Open