সিসিকের নির্বাচনে কে হবেন আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক ::

নির্বাচন কমিশন (ইসি) কর্তৃক ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ৩০ জুলাই সিলেট সিটি কর্পোরেশন (সিসিক) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আওয়ামীলীগের প্রার্থী নিয়ে শুরু হয়েছে নানা আলোচনা। সিসিকের সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের মনোনয়ন প্রাপ্তি নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন অনেকেই।

নির্বাচনকে ঘিরে ইতোমধ্যে সিলেট জুড়ে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা লক্ষ করা যাচ্ছে। প্রধান দুটি দলের প্রার্থী বাছাইয়ে একদল নিশ্চিত করলেও অপর দলের প্রার্থী এখনো অনিশ্চিত রয়েছেন। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের বর্তমান মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে মনোনয়ন দিয়েছে বিএনপি। পক্ষান্তরে প্রার্থী বাছাইয়ে কিছুটা সময় নিচ্ছে আওয়ামী লীগ। এই সময় নেয়াকে কেন্দ্র করে নগরজুড়ে চলছে নানা জল্পনা কল্পনা।

আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদসহ আরো দুইজন দলের কাছে মনোনয়ন চাইবেন বলে জানা গেছে। ফলে সিসিকের সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়টি খুব সহজ চোখে দেখছেন না অনেকেই।
গত নির্বচনে কামরান বিএনপির প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীর কাছে প্রায় ৩৫ হাজার ভোটের বিশাল ব্যবধানে হেরেছিলেন। এই বিষয়টি সামনে রেখে দলীয় নেতৃবৃন্দের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ করা যাচ্ছে।

সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান বলেন, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা আগামী নির্বাচনের জন্য আমাকে প্রস্তুতি নিতে বলেছেন। তাই আমি নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছি। দলীয় নেতাকর্মী ও ভোটারদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি। আমি সব সময় নগরবাসীর পাশে থেকে কাজ করেছি। সাধারণ মানুষ আমাকে ভালোবাসে। দলীয় মনোনয়ন পাব বলে আমি আশাবাদী।

মনোনয়ন প্রত্যাশি সাবেক ছাত্রনেতা নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদের বেশ গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে সর্বমহলে। তাঁর নিজস্ব একটি বলয় চাইছে তিনি নির্বাচনে অংশ নেন। দলের একটি বড় অংশের এমন চাওয়াকে সম্মান দেখাতেই মেয়র পদে মনোনয়ন চাইবেন আসাদ উদ্দিন আহমদ। তিনি বলেন, আমি দীর্ঘদিন ধরে মাঠে কাজ করছি। তৃণমূলসহ সর্বত্র থেকে ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে আমার একটা শক্ত অবস্থান রয়েছে। দল নিশ্চয়ই আমাকে মূল্যায়ন করবে বলে আমি আশাবাদি।

এছাড়াও সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন চাইবেন নগর আওয়ামী লীগ নেতা সিটি কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদ। দলের একাধিক সূত্রের সাথে আলাপ করে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

এদিকে কেন্দ্রের একাধিক সূত্র বলছে মনোনয়ন দৌঁড়ে এখনো অনেকটা এগিয়ে রয়েছেন বদর উদ্দিন আহমদ কামরান।

স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে কামরানের সম্পর্কের একটা টানাপড়েন চলছে। এই সুযোগটা কাজে লাগাতে চাচ্ছেন দলের শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দ। তাছাড়া প্রভাবশালী নেতা কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজও এবার মেয়র পদে প্রার্থী পরিবর্তন চাচ্ছেন বলে আভাস পাওয়া গেছে।

উল্লেখ্য, সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অংশ নিতে ইচ্ছুক প্রার্থীগণ আগামী ১৩ থেকে ২৮ জুনের মধ্যে মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন ।

Sharing is caring!

Loading...
Open