মেয়রের মৃত্যুতে শোকে মুহ্যমান গোলাপগঞ্জ , শনিবার দাফন

সুরমা টাইমস ডেস্ক ঃঃ বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ গোলাপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরীর মৃত্যুতে গোলাপগঞ্জ উপজেলাজুড়ে শোকের আবহ বিরাজ করছে।

বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৩টায় রাজধানীর ল্যাব এইড হাসাপতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৭৬ বছর বয়সে তিনি মৃত্যুবরন করেন ইন্নালিল্লাহি..রাজিউন।

মেয়রের বড় ছেলের বরাত দিয়ে তারঁ প্রতিবেশী রনকেলী মহিউস সুন্নাহ মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা আব্দুল জলিল জানান ২জুন শনিবার বিকাল ৩টায় গোলাপগঞ্জ এমসি একাডেমী স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে মরহুমের জানাযার নামাজ শেষে গ্রামের বাড়ী পৌরসভার রনকেলীস্থ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে ও দুই মেয়ে নাতী-নাতনি সহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।

গত ২৩ মে রাতে রাজধানীর ল্যাব এইড হাসপাতালে হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডাক্তার লুৎফুর রহমানের তত্তাবধানে সিরাজুল জব্বারের ওপেন হার্ট সার্জারী সম্পন্ন হয়। এর আগে ঢাকা ন্যাশনাল হার্টফাউন্ডেশন হাসপাতালে করোনারী এনজিওগ্রাম (সিএজি) পরীক্ষায় মেয়রের হার্টে জটিল ব্লক ধরা পড়ে।

অপারেশনের পর কিছুটা সুস্থ হলেও ২৬ মে লিভার ও কিডনী জটিলতায় শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ২৭মে থেকে হাসপাতালের নিবীড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয় মেয়রকে। চিকিৎসাধীন থাকাকালে মেয়রের শারীরিক অবস্থার খোজঁ নিতে হাসপাতালে ছুটে যান শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, কানাডা আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সরোয়ার হোসেন, সিলেট কৃষি বিদ্যালয়ের রেজিস্টার বদরুল ইসলাম শোয়েব সহ শুভাকাংখীরা। মেয়রের চিকিৎসার সার্বিক তত্তাবধানে ছিলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক দুলাল আহমদ চৌধুরী।

তাঁর সুস্থ্যতা কামনায় দেশ বিদেশে কোরআনে খতম ও বোখারী খতম পড়ে দোয়া হয়। মেয়রের পরিবারিক সূত্রে জানাগেছে বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টায় ল্যাবএইড হাসপাতালের মেডিকেল বোর্ড মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরীকে ক্লিনিক্যালী মৃত ঘোষনা করেন এরপর সাড়ে ৩টায় লাইফ সার্পোট খুলে নেওয়া হয়।

এদিকে মেয়রের মুত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে শোকে মুহ্যমান হয়ে পড়ে গোলাপগঞ্জ। গোলাপগঞ্জ পৌরশহরের অনেকেই খবরটি প্রথমে বিশ্বাস করতে পারেননি। বিকাল সাড়ে ৩টার পর থেকে পৌরশহরের লোক মুখে প্রয়াত সিরাজুল জব্বার চৌধুরীর গুনকির্তন শুনা যায়। অনেকে আফসোস করে বলতে থাকেন শুধু পৌরশহর নয় পূর্ব সিলেটের একজন অভিভাবককে আমরা হারালাম।

সিরাজুল জব্বার চৌধুরী একসময় বাংলাদেশ রেলওয়ের প্রথম শ্রেণীর ঠিকাদার ছিলেন। নব্বই দশকে ঠিকাদারী ছেড়ে স্থানীয় রাজনীতি ও জনসেবায় নাম লেখান। তিনি জীবিত অবস্থায় গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক ছিলেন। এছাড়া রণকেলী মহি উসসুন্নাহ মাদ্রাসা, রণকেলী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ, গোলাপগঞ্জ এমসি একাডেমী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি পদে প্রায় দেড় যুগ ধরে দায়ীত্ব পালন করেন।

তিনি গোলাপগঞ্জ সদর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও গোলাপগঞ্জ পৌরসভার প্রথম পৌর প্রশাসক ছিলেন। ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর গোলাপগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে বিপুল ভোটে সাবেক মেয়র জাকারিয়া আহমদ পাপলুকে পরাজিত করে পৌর মেয়র নির্বাচিত হন সিরাজুল জব্বার চৌধুরী

বিভিন্ন মহলের শোক: গোলাপগঞ্জ পৌর মেয়রের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছে শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ, গোলাপগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন, গোলাপগঞ্জ উপজেলা ও পৌর আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ। গোলাপগঞ্জ বাজার বণিক সমিতির পক্ষে সভাপতি আলেকুজ্জ্বামান আলেক, সাধারন সম্পাদক আব্দুল আহাদ, কোষাধ্যক্ষ মাহবুবুর রহমান চৌধুরী।

গোলাপগঞ্জ প্রেসক্লাবের পক্ষে সভাপতি শহীদুর রহমান সুহেদ, সাধারন সম্পাদক ইউনুস চৌধুরী। গোলাপগঞ্জ অনলাইন প্রেসক্লাবের পক্ষে সভাপতি এম আব্দুল জলিল, সাধারন সম্পাদক জাহিদ উদ্দিন।

গোলাপগঞ্জ সাংবাদিক কল্যাণ সমিতিরি পক্ষে সভাপতি মাহবুবুর রহমান চৌধুরী সাধারন সম্পাদক খন্দকার বদরুল আলম। যুক্তরাজ্যস্থ অনলাইন আমাদের প্রতিদিন সম্পাদক সাংবাদিক আনোয়ার শাহজাহান, যুক্তরাজ্য যুবলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আমিনুল ইসলাম রাবেল। সামাজিক সংগঠন গোলাপগঞ্জ ক্লাবের পক্ষে সভাপতি মুসা চৌধুরী সায়েম সাধারন সম্পাদক মাস্টার সালেহ আহমদ। এছাড়া গোলাপগঞ্জ রণকেলী মহি উসসুন্নাহ মাদ্রাসা, রণকেলী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ, গোলাপগঞ্জ এমসি একাডেমী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ কর্তৃপক্ষ ও যুক্তরাজ্যস্থ গোলাপগঞ্জ ট্রাস্ট ইউকে শোক প্রকাশ করেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open