ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি হবার কয়েক ঘন্টার মধ্যে পদ হারালেন মৌলভীবাজারের পান্না!

সদ্য ঘোষিত মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি হবার কয়েক ঘন্টার মধ্যে পদ হারাতে হয়েছে জাকির হোসেন পান্নাকে। জাতীয়তাবাদী রাজনীতির সাথে পান্নার সম্পৃক্ততা আছে এমন অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তুমুল সমালোচনাও হয়েছে পান্নাকে নিয়ে।

এমনকি ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন উজ্জ্বলের সাথে ছবিও রয়েছে পান্নার। এমনসব অভিযোগে পান্নাকে বাদ দিয়ে সংশোধনী কমিটি প্রকাশ করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। পান্নার স্থলাভিষিক্ত করা হয়েছে সুরঞ্জন সূত্রধর নামের একজনকে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কমলগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের দায়িত্বশীল এক নেতা জানান, জাকির হোসেন পান্না কমলগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের সক্রিয় কর্মী ছিল। ছাত্রদলের সক্রিয় থাকায় কমলগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটিতে পান্নাকে স্থান দেননি সদ্য বিদায়ী সভাপতি আসাদুজ্জামান রনি।

দেড় যুগ পর সম্মেলন হয় সোমবার (২৩শে এপ্রিল)। ওই দির রাতেই কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসাইনের সাক্ষরিত দলীয় পেডে ২৭ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। ঘোষণার কয়েক ঘন্টার পর সংশোধনী কমিটি প্রকাশ করে কেন্দ্রী ছাত্রলীগ। সংশোধনী কমিটিতে জাকির হোসেন পান্নার নাম বাদ দিয়ে প্রকাশ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, দীর্ঘ ২০ বছর পর সোমবার (২৩শে এপ্রিল) মৌলভীবাজার পৌর জনমিলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয়েছে মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন। সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী মির্জা আজম এম.পি। উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য সায়রা মহসিন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নেছার আহমদ, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসাইন সহ জেলা ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ।

এ প্রসঙ্গে জাকির হোসেন পান্নার মুঠোফোনে (শেষ নাম্বার ৪০) যোগাযোগ করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।

এ জেলা ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সভাপতি আসাদুজ্জামান রনি বলেন-‘বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় নিউজ হয়েছে পান্না ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে জড়িত। এজন্য কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ তাকে বাদ দিয়ে সংশোধনী কমিটি প্রকাশ করেছেন। তবে সম্পূর্ন্ন কেন্দ্রের নিয়ন্ত্রিত’।

Sharing is caring!

Loading...
Open