গোয়াইনঘাটের আমির আলী হত্যা মামলার আসামিদের গ্রেফতারের দাবি

গোয়াইনঘাটের সালুটিকরে জোড়া খুনের মামলার আসামি আমির আলীকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তার স্ত্রী জয়নব বিবি। আজ বৃহস্পতিবার সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করে হত্যাকান্ডে জড়িত আসামিদের গ্রেপ্তারের দাবি জানান। জয়নব বিবির পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নিহত আমির আলীর ভাতিজি লায়লা বেগম।

সংবাদ সম্মেলনে জয়নব বিবি অভিযোগ করে বলেন, গোয়াইনঘাট উপজেলার সালুটিকরের বহর ও মিত্রিমহল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে জোড়া খুনের পর বহর গ্রামে আসামিদের বাড়ী-ঘরে হামলা চালিয়ে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট করা হয়েছে। ভয়ে এবং আতঙ্কে এখন পুরুষ শূন্য হয়ে আছে পুরো এলাকা। এই সুযোগে চুরি-ডাকাতির ঘটনাও ঘটছে। নারী-শিশুরা এক উদ্বেগজনক পরিস্থিতিতে নিরাপত্তাহীন অবস্থায় বসবাস করছেন। তিনি বলেন, গত ২৪শে মার্চ বহর ও মিত্রিমহল গ্রামবাসীর রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ২ জনের মৃত্যুর ঘটনায় ৯৭ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়। তার স্বামী নিহত আমির আলী ছিলেন এই জোড়া খুন মামলার ১৪ নম্বর আসামি। মামলার পর অনেক আসামি কারাগারে। কেউ কেউ পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। নিহত আমির আলী গত ১১ই এপ্রিল জামিন নিতে আদালতের উদ্দেশে রওয়ানা দেন। ওইদিন বেলা ২ টার দিকে সংবাদ আসে দীঘির হাওরে রক্তাক্ত অবস্থায় অজ্ঞান অবচেতন হয়ে পড়ে রয়েছেন আমির আলী। আত্মীয় রমুজ আলীকে সংগে নিয়ে জয়নব বিবি দীঘির হাওরে পৌছে দেখতে পান তার স্বামী সারা শরীরে রক্তাক্ত জখম অবস্থায় পড়ে আছেন। তখন উপস্থিত লোকজনের নিকট তিনি জানতে পারেন সন্ত্রাসীরা লোহার রড, সুলফি, ছুরি দিয়ে আঘাতে আঘাতে বুকে পিঠে রক্তাক্ত জখম করা হয়েছে আমির আলীকে। এলাকাবাসীর সহায়তায় সেখান থেকে এম্বুলেন্সযোগে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আমির আলীকে মৃত ঘোষণা করেন। মৃত্যুর খবর পেয়ে কোতোয়ালি থানা পুলিশ হাসপাতালে উপস্থিত হয়ে সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি এবং ময়না তদন্তের ব্যবস্থা করে।

লিখিত বক্তব্যে আরো বলা হয়, আমির আলীর দাফন কার্য শেষে জয়নব বিবি গত ১২ই এপ্রিল গোয়াইনঘাট থানায় এজহার দাখিল করলে থানা পুলিশ মামলা নিতে অনীহা প্রকাশ করায় ১৬ই এপ্রিল আদালতে মামলা দায়ের করেন। আদালত মামলা রেকর্ড করতে গোয়াইনঘাট থানার ওসিকে নির্দেশ দেন। আদালতের নির্দেশে গোয়াইনঘাট থানার ওসি গত ১৭ই এপ্রিল মামলাটি রেকর্ড করেন। মামলা নং ১১। মামলায় আসামি করা হয়-মিত্রিমহল গ্রামের আব্দুস সুবহান, মানিক মিয়া, আশরাফুল আমীন, আল-আমীন, ফখরুল আমীন, হায়দর আলী, কাচা মিয়া, ইরশাদ আলী, আব্দুস শহীদ, আসাদুল, আতা, তেরাই মিয়া, চান মিয়া, ইউনুছ, আলী আমজদ সহ অজ্ঞাত আরো ২০/২৫ জন। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, আমির আলীর মর্মান্তিক হত্যাকান্ডের পরদিন দু’একটি পত্রিকায় হার্ট এ্যাটাকে মৃত্যু হয়েছে বলে সংবাদ প্রকাশ করা হয়। যা পড়ে তারা বিষ্মিত ও হতবাক হয়েছেন। সংবাদ সম্মেলনে জয়নব বিবি তার স্বামী আমির আলীর খুনীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। এ সময় নিহত আমির আলীর পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। – বিজ্ঞপ্তি

Sharing is caring!

Loading...
Open