প্রধানমন্ত্রীকে ৭ দিনের ‘আল্টিমেটাম’……..

সুরমা টাইমস ডেস্ক:: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে কোটা সংস্কার বিষয়ে সাত দিনের মধ্যে সুনির্দিষ্ট বক্তব্য চেয়েছে আন্দোলনকারীরা। কোটা কমিয়ে কত শতাংশ করা হবে সে বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে বক্তব্য চাইলেও তা কমিয়ে ১০ শতাংশ না করা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে বলেও জানানো হয়েছে।

বুধবার (১১ এপ্রিল) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতা হাসান আল মামুন।

বাংলাদেশে সরকারি চাকরিতে মোট ৫৬ শতাংশ কোটা আছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি কোটা আছে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জন্য ৩০ শতাংশ। এর বাইরে জেলা ও নারী কোটা ১০ শতাংশ করে এবং প্রতিবন্ধী কোটা আছে এক শতাংশ।

আন্দোলনকারীদের নেতা হাসান আল মামুন বলেন, ‘সরকারের একেক নেতা একেক ধরনের কথা বলে। তাদের কথা আমাদের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে সুনির্দিষ্ট বক্তব্য চাইছি কত শতাংশ কোটা সংস্কার করবে।’

‘আমাদের দাবি এটা ১০ শতাংশে নামিয়ে আনতে হবে। এ জন্য সরকারের তিনটি কমিশনের হিসাব নিকাশের বিষয় আছে। এটা বিবেচনা করে আমরা সাত দিন সময় দিচ্ছি।’ এই সাত দিন আন্দোলন চলবে বলেও ঘোষণা দেয়া হয় সংবাদ সম্মেলনে। বলা হয়, ‘প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে সুনির্দিষ্ট ঘোষণা এলে আন্দোলন প্রত্যাহার করব।’

তবে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পরও দাবি অনুযায়ী যতদিন কোটা ১০ শতাংশে নামিয়ে আনা হবে ততদিন আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার কথাও বলা হয় সংবাদ সম্মেলনে।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, কোটা সংস্কারের জন্য তিনি নিজেও প্রধানমন্ত্রীকে পরামর্শ দিয়েছেন। কিন্তু এই কাজ করতে বাজেট পার হয়ে যাবে। শিক্ষার্থীরা এই সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে রাজি নয়।

সংবাদ সম্মেলনে হাসান আল মামুন বলেন, বিভিন্ন এলাকায় তাদের কর্মীদেরকে আন্দোলন থেকে সরে আসতে চাপ দেয়া হচ্ছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সুফিয়া কামাল হলে এক ছাত্রীকে মারধর করার ঘটনায় অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেত্রী ইশরাত জাহান এশাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আজীবন বহিষ্কারের দাবিও জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।

Sharing is caring!

Loading...
Open