নগরীতে মা-ছেলে হত্যার যে লোমহর্ষক বর্ণনা দিলো ইয়াবাকন্যা তানিয়া…….!

নিজস্ব প্রতিবেদক::     সিলেট নগরীর মিরাবাজারের খাঁরপাড়া এলাকায় রোকেয়া বেগম ও তার ছেলে রবিউল ইসলাম রোকন খুনের মামলায় মুল সন্দেহভাজন তানিয়া আক্তারকে তার কথিত স্বামীসহ গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। সোমবার ভোরে কুমিল্লার তিতাস থানাধীন ঘোষকান্দি গ্রামের নিজবাড়ি থেকে তানিয়াকে। এরআগে, রবিবার বিকেলে সিলেট নগরীর বন্দরবাজার থেকে তার কথিত স্বামী ইউসূফ মামুনকে গ্রেফতার করা হয়। তার দেওয়া তথ্যমতে তানিয়াকে কুমিল্লা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারের পর সিলেটের উপশহরস্থ পিবিআই’র কার্যালয়ে তাদেরকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। এতে মিরাবাজারের জোড়াখুনের ঘটনায় তারা সরাসরি সম্পৃক্ত থাকার বিষয়টি স্বীকার করেছে। জিজ্ঞাসাবাদে তানিয়া এবং তার স্বামী মামুনের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য নিয়ে সোমবার সন্ধ্যায় প্রেস ব্রিফিং করেছেন পিবিআই সিলেটের বিশেষ পুলিশ সুপার রেজাউল করিম মল্লিক।

রেজাউল করিম মল্লিক বলেন- রোকেয়া ও তার ছেলে রোকনকে নিজ হাতে হত্যার কথা স্বীকার করেছে তানিয়া ও তার স্বামী। তারা বলেছে- রোকেয়ার সাথে তানিয়ার পরিচয় বছর দুয়েক আগে। সিলেটে মাজারে আসলে সেখানে কুমিল্লার তিতাস উপজেলার তানিয়ার সাথে পরিচয় হয় রোকেয়ার। তাদের মধ্যে গড়ে উঠে ছোট বোন- বড় বোন সম্পর্ক। পরে নিজের বাসায় তানিয়াকে আশ্রয় দেয় রোকেয়া। সেখানে থেকেই রোকেয়ার মাধ্যমে তানিয়া দেহ ব্যবসার সাথে জড়িয়ে পরে। রোকেয়ার বাসায় দেহ ব্যবসা ছাড়াও চলত মাদক বিক্রি ও সেবন।

বছর খানেক আগে মামুনের সাথে তানিয়ার বিয়ে হলেও তানিয়ার মাদক ও দেহ ব্যবসার বিষয়টি জানত না মামুন। বিয়ের পর প্রায়ই তানিয়া রোকেয়ার বাসায় আসত। এর পেছনে কারণ ছিল তার দেহ ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ততা ও ইয়াবা ব্যাবসা। মাস খানেক আগে মামুনকে না বলেই রোকেয়া এবং আরো কয়েকজনের সাথে কক্সবাজার ঘুরতে যায় তানিয়া। বিষয়টি বুঝতে পেরে তানিয়ার কাছে জানতে চাইলে মামুনকে সবকিছু খুলে বলে তানিয়া। তানিয়ার দাবী রোকেয়াই তাকে এসবের সাথে সম্পৃক্ত করেছে। এরপর থেকেই রোকেয়ার প্রতি ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে মামুন ও তানিয়া। এর কিছুদিন পরই রোকেয়া ও তার পরিবারকে হত্যার পরিকল্পনা করে তানিয়া দম্পতি।

পিবিআই’র এ শীর্ষ কর্মকর্তা আরো জানান- পূর্ব পরিকল্পনা থেকেই ঘটনার দিন শুক্রবার (৩১শে মার্চ) সন্ধ্যার দিকেই তানিয়া ও তার কথিত স্বামী মামুন রোকেয়া বেগমের বাসায় যায়। এদিন রাতে তারা রোকেয়া এবং তার ছেলে-মেয়েকে খাবারের সাথে ঘুমের ঔষধ খায়িয়ে অচেতন করে। রাত আনুমানিক ২টার দিকে মামুন ছুরি দিয়ে রোকেয়ার গলায় আঘাত করে এবং পরবর্তীতে মৃত্যু নিশ্চিত করতে রোকেয়ার শরীরে শতাধিক ছুরিকাঘাত ঘাত করে। এরপর তারা রোকেয়ার ছেলে রোকনকে ছুরিকাঘাত করে এবং গলাটিপে মৃত্যু নিশ্চিত করে। জীবিত উদ্ধার হওয়া রোকেয়া বেগমের পাঁচ বছর বয়সী মেয়ে রাইসাকেও তারা হত্যার উদ্দ্যেশ্যে ঘুমের ঔষধ খাওয়ায় এবং গলা চেপে ধরে। রাইসাও মারা গেছে এমন ধারণায় তারা রাতেই এই বাসা ত্যাগ করে।

হত্যাকান্ড শেষে তারা মিরাবাজার খাঁরপাড়ার বাসা থেকে কুমিল্লার তিতাস উপজেলায় তানিয়ার বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। পথিমধ্যে কোন এক যায়গায় তারা হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুরি ও কাপড় ফেলে যায় বলেও জানান পিবিআই’র এ কর্মকর্তা।

উল্লেখ্য,ঘটনার পর থেকেই রোকেয়ার গৃহকর্মী/বান্ধবী তানিয়া নিখোঁজ ছিলো। ওইদিন রাতেই রোকেয়া বেগমের ভাই জাকির হোসেন বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ৪-৫ জনকে আসামি করে কোতয়ালি থানায় একটি মামলা করেন।

তানিয়া ও তার কয়েকজন সহযোগী এ হত্যার সঙ্গে জড়িত বলে জানিয়েছে বেঁচে যাওয়া রোকেয়ার মেয়ে রাইসা। শিশুটিকে কোতয়ালি থানা পুলিশের ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখা হয়েছে।

এরপর গত ৪ঠা এপ্রিল এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে নাজমুল হোসেন,ওরফে বাবা নাজমুলকে শহরতলীর বটেশ্বর এলাকা থেকে আটক করে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত নাজমুল এই হত্যাকান্ডেরসাথে সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করেছে বলে উল্যেখ করেছেন কতোয়ালী মডেল থানার (এসি) কাউসার দস্তগীর,পরে তাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। এ নিয়ে চাঞ্চল্যকর এই হত্যা মামলায় ইয়াবা নাজমুলসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। উল্লেখ্য, গত ১লা এপ্রিল দুপুরে নগরীর মিরাবাজার খাঁরপাড়ার মিতালী আবাসিক এলাকার একটি ভবনের নিচতলা থেকে রোকেয়া বেগম ও তার ছেলে রবিউল ইসলাম রুকনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ সময় রোকেয়ার পাঁচ বছর বয়সী মেয়ে রাইসা বেগমকে আহতাবস্থায় উদ্ধার করা হয়। ঘটনার দিন রাতেই নিহত রোকেয়া বেগমের ভাই জাকির হোসেন বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ৪-৫ জনকে আসামী করে কোতোয়ালী থানায় মামলা দায়ের করেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open