“ধর্মপাশায় প্রভাষক জুয়েল হত্যা খুনিদের গ্রেফতার দাবি পরিবারের”

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি ::        সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের ইতিহাস বিভাগের প্রভাষক আবু তৌহিদ জুয়েলের হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবি করেছে তার পরিবার।

আজ রবিবার দুপুরে সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে তাঁর ভাই সিলেট মদন মোহন কলেজের প্রভাষক সুয়েবুর রহমান এ দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, গত বছরের ১লা ডিসেম্বর ধর্মপাশা উপজেলার কাকিয়াম গ্রামে জমি সংক্রান্ত পূর্ব বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের হাতে নির্মমভাবে খুন হন প্রভাষক আবু তৌহিদ জুয়েল। খুন হাওয়ার ২৫ দিন আগেই তাঁর প্রাণনাশের হুমকি রয়েছে উল্লেখ করে ধর্মাপশা থানায় সাধারণ ডায়রি করেন প্রভাষক জুয়েল। ঘটনার দিন ১১ জনকে আসামি করে ধর্মাপাশা থানায় মামলা দায়ের করেন তার বড়ভাই প্রভাষক সুয়েবুর রহমান। ওই দিন তিন আসামিকে স্থানীয়রা ধরে পুলিশে দিলেও প্রধান আসামিসহ ৮ জনকে গ্রেফতার না করায় ভয়ে রয়েছেন জুয়েলের পরিবার।

এজহারভুক্ত আসামীদের সাথে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা অনির্বান বিশ্বাসের সখ্যতা থাকায় তাদের ধরা হচ্ছে না বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়।

সুয়েব জানান,  গত ২৬শে মার্চ নেত্রকোণা জেলার বারহাট্টা উজেলার কাকুড়া বাজারে মামলা আসামি গাজি শাসুদ্দিনকে স্থানীয় জনতা আটক করে পুলিশে খবর দিলেও পুলিশ তাকে গ্রেফতারের কোন উদ্যোগ নেয়নি। পুলিশের সাথে আসামিদের গোপন আতাতের অভিযোগ করেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, খুনি আব্দুর রাজ্জাকসহ অন্য আসামিরা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রসী। এদের ভয়ে এলাকার কেউ মুখ খুলতে চায় না। তারা দম্ভ করে বলে দিনে দুপুরে খুন করেলেও কিচ্ছু করতে পারছে না কেউ। আমরা পুলিশকে ম্যানেজ করে এলাকায় বহাল তবিয়তে আছি।

সংবাদ সম্মেলনে বার বার কান্নায় ভেঙে পড়ে প্রভাষক সুয়েব তার ভাইয়ের হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও শাস্তি নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীসহ পুলিশ বিভাগের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

ধর্মপাশা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুরঞ্জিত তালুকদার জানান, আসামিরা বার বার অবস্থান পরিবর্তন করায় তাদের ধরা সম্ভব হচ্ছে না। তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে আমরা আসামিদের ধরতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

তদন্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সম্পর্কে ওসি বলেন, মামলার ব্যাপারে তদন্ত কর্মকর্তা আন্তরিক না এটা ঠিক। তাকে বদলানোর ব্যাপারে আমরা চিন্তা করছি।

সংবাদ সম্মেলনে  আরও উপস্থিত ছিলেন, সিপিবির জেলা সভাপতি চিত্তরঞ্জন তালুকদার, সাবেক পিটিআই সুপার গোলাম মোস্তফা।

Sharing is caring!

Loading...
Open