“স্ত্রী স্নিগ্ধার দোষ স্বীকার, কামরুলের ১০দিনের রিমান্ড”

সুরমা টাইমস ডেস্ক ::    রংপুরে বিশেষ জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ও আওয়ামী লীগ নেতা রথীশ চন্দ্র ভৌমিক বাবু সোনাকে (৫৮) হত্যা মামলায় দোষ স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন তার স্ত্রী সিগ্ধা সরকার দীপা। ওই মামলার প্রধান আসামি কামরুল ইসলামকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

রংপুরের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক আরিফা ইয়াসমিন মুক্তা বৃহস্পতিবার রাতে শুনানি শেষে এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

স্নিগ্ধা, তার প্রেমিক কামরুল ইসলাম ও দুই শিক্ষার্থীকে বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৯টার দিকে আদালতে হাজির করা হয়। ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়ার পরে তাদেরকে কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

মামলায় নতুন করে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে রথীশ চন্দ্রের মোটরসাইকেল চালক মিলন মহন্তকে। এ নিয়ে এ হত্যা মামলায় পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হলো।

কামরুলকে গত সোমবার এবং দীপাকে গত মঙ্গলবার রাতে গ্রেফতারের পর তাদের দেয়া তথ্যে নিখোঁজ হওয়ার পাঁচদিন পর কামরুলের ভাইয়ের নির্মাণাধীন বাড়ি থেকে রথীশের লাশ উদ্ধার করা হয়। রথীশ নিখোঁজ হওয়ার পরদিন ১লা এপ্রিল তার ছোট ভাই সুশান্ত ভৌমিক অজ্ঞাত পরিচয় আসামিদের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় একটি অপহরণ মামলা করেন। মঙ্গলবার রাতে লাশ উদ্ধারের পর তা হত্যা মামলায় পরিণত হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রংপুর কোতোয়ালি থানার এসআই আল আমীন বলেন, জবানবন্দিতে স্নিগ্ধা তার স্বামীকে হত্যার দায় স্বীকার করেন এবং তার স্কুলের সহকর্মী কামরুলের সঙ্গে পরকীয়ার কথাও স্বীকার করেন।

তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, দুই কিশোর তাদের জবানবন্দিতে শিক্ষক কামরুলের নির্দেশে তার ভাইয়ের নির্মাণাধীন বাড়ির একটি কক্ষে গর্ত খোঁড়ার কথা স্বীকার করেন। ওই গর্তেই রথীশের মাটিচাপা দেয়া লাশ পাওয়া যায়।

Sharing is caring!

Loading...
Open