“না ফেরার দেশে চলে গেলেন নৃত্যগুরু কে যতীন্দ্র সিংহ”

সুরমা টাইমস ডেস্ক::     বিশ্বভারতি শান্তিনিকেতন সংগীতভবনের প্রাক্তন অধ্যক্ষ নৃত্যগুরু অধ্যাপক কে যতীন্দ্র সিংহ জিতেন (৭৩) গতকাল মঙ্গলবার রাত আড়ইটায় অবনপল্লী, শান্তিনিকেতনে পরলোকগমন করেছেন।

মণিপুরী ও রবীন্দ্র নৃত্যের এই মহান শিল্পীর প্রয়ানে মণিপুরী নৃত্যে জগতের এক অধ্যায়ের পরিসমাপ্তি ঘটল।

মঙ্গলবার শান্তিনিকেতনে কালিসায়র শ্মশানে তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়।

অধ্যাপক কে যতীন্দ্র সিংহ জিতেন আসামের কাছাড় জেলার লক্ষীপুরে ১৯৪৫ সালে ২২ এপিল জন্ম গ্রহণ করেন। পিতা মণিপুরী নৃত্যগুরু কে কামিনী সিংহ, মাতা পশোৎ লৈমা।

পিতার কাছেই তাঁর নৃত্যে হাতেখড়ি। তারপর একে একে তালিম নেন মণিপুরী নৃত্যে দিকপাল গুরু লোকেশ্বর, গুরু বাবতোন, গুরু লক্ষণ, গুরু মাইস্নাম আমুবী, গুরু এইচ অতোম্বা, গুরু এ অমুবান প্রমুখের কাছে।

শান্তিনিকেতনে রবীন্দ্র নৃত্যনাট্যে তার নিদের্শনা ও কোরিগ্রাফি প্রবাদতুল্য। প্রফেসর জিতন সিংহ বাংলাদেশ মণিপুরী সাহিত্য সংসদের (বামসাস) আমন্ত্রণে সিলেটে এসেছেন বেশ কয়েকবার।

তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, ২০০০ সনে বামসাস’র রজত জয়ন্তী অনুষ্ঠানে কে. জিতেনের নির্দেশনায় বিশ্বভারতি মণিপুরী নৃত্য বিভাগের শিক্ষার্থীুেদর ‘ভানুসিংহের পদাবলী’ মঞ্চায়ন। এছাড়া ২০০৩ সালে সিলেটে অনুষ্ঠিত মণিপুরী নৃত্য উৎসবে প্রথমবারের মতো লাই-হারাওবা নৃত্য স্টেজে মঞ্চায়ন করেন।

নৃত্যগুরু অধ্যাপক কে যতীন্দ্র সিংহ জিতেনের মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন বাংলাদেশ মণিপুরী সাহিত্য সংসদের সভাপতি কবি এ কে শেরাম সাধারণ সম্পাদক নামব্রম শংকর, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব অনিল কিষণ সিংহ, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট সিলেটের সভাপতি আমিনুল ইসলাম লিটন, আনন্দলোকের পরিচালক রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী রাণা কুমার সিনহা, ঈনাৎ পাবিøকেশনের পরিচালক কবি শেরাম নিরঞ্জন, মণিপুরী কারচারাল কমপ্লেক্স’র সভাপতি জয়ন্ত সিংহ, সদস্য সচিব রবিকিরণ সিংহ রাজেশ, প্রথম দিনের সূর্য’র সভাপতি এনায়েত হাসান মানিক, কবি এন যোগেশ্বর অপু।

Sharing is caring!

Loading...
Open