“স্বাধীনতা দিবসে লাল সবুজে আলোকিত সিলেট”

নিজস্ব প্রতিবেদক::     জোনাকির মত ছোট্ট ছোট্ট বাতিগুলো একই তারে গাঁথা। সেখান থেকেই ছড়াচ্ছে রঙিন লাল-সবুজের দ্যূতি। স্বাধীনতার লাল-সবুজের সেই বর্ণিল আলোয় উদ্ভাসিত হয়ে উঠেছে সিলেটের বিভিন্ন গুরুত্বপুর্ণ ভবন এবং সড়ক৷

স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে বর্ণিল সাজে সজ্জিত করা হয়েছে সিলেট নগরীর বিভিন্ন রাস্তা, শহীদ মিনার এবং গুরুত্বপূর্ণ ভবনসমুহ। লাল-সবুজের আবহ মিশিয়ে বাংলাদেশের পতাকার আদলে করা সিলেট সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ লাইন্স এবং সার্কিট হাউসের আলোকসজ্জা ছিল দৃষ্টিনন্দন। ভবনে বাতির ঝলমলে ফুটে উঠেছে লাল সবুজের জাতীয় পতাকা৷

সন্ধ্যা থেকেই সিলেটের গুরুত্বপুর্ণ বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে আলোকসজ্জায় বিমোহিত হয় সাধারণ মানুষ৷ অনেকেই বিভিন্ন ভবনের সামনে ঘুরে ঘুরে বর্ণিল আলোকসজ্জা দেখে বেড়াচ্ছেন, কেউবা তুলছেন সেলফি। এ যেনো অন্যরকম পুলক। মনকড়া এমন আলোকসজ্জায় মুগ্ধ সবাই।

নগরীর এ আলোকসজ্জা দেখে মুগ্ধ কর্মব্যস্ত মানুষ। অনেকে ঘুরে ঘুরে দেখছেনে আবার অনেকে সুন্দর এ দৃশ্য ক্যামেরায় ধারণ করছেন।

সিলেট মদনমোহন কলেজের ছাত্রনেতা রাহিয়ান চৌধুরী রাহি বলেন – আমাদের মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে নগরীতে যে আলোকসজ্জা করা হয়েছে তা আসলে মনোমুগ্ধকর।এমন মনোমুগ্ধকর দৃশ্য নিজ চোখে না দেখলে কেউ উপভোগ করতে পারবে না।

সিলেট সরকারী কলেজের মাস্টার্সের ছাত্র জুনেদুর রহমান বলেন – প্রতিদিনই এ রাস্তা দিয়ে চলাচল করি। আলোকসজ্জার কারণে যে দৃশ্যপট সৃষ্টি হয়েছে তা আসলেই চোখ ধাঁধানো। যে কারণে দৃশ্যটি মোবাইলে ধারণ করলাম।

সিলেটের একটি গুরুত্বপুর্ন ভবনে এমন আলোকসজ্জা দেখছিলেন মহানগর ছাত্রলীগকর্মী শহীদুল ইসলাম সৌমিক৷ তিনি বলেন-আমরা ১৯৭১ মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি। স্বাধীনতা আমাদের প্রেরণা। আর স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে সাজানো এমন মনমুগ্ধকর দৃশ্য স্বচোখে না দেখলে কেউ উপভোগ করতে পারবে না। তাই বন্ধুদের নিয়ে ঘুরতে বেরিয়েছি।

২৬শে মার্চ বাংলাদেশের ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ণ একটি দিন। ১৯৭১ সালে এ দিনে পাকিস্তানি দখলদার বাহিনী নিরস্ত্র বাঙ্গালীর উপর ঝাপিয়ে পড়ে। দীর্ঘ নয়মাস যুদ্ধের মাধ্যমে হানাদারদের পরাস্ত করে বিশ্বের মানচিত্রে সৃষ্টি হয়েছিল নতুন একটি সার্বভৌম দেশ, বাংলাদেশ।

Sharing is caring!

Loading...
Open