ইজিবাইক থেকে নামিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ

ডেস্ক রিপোর্টঃ রাজবাড়ীতে ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক থেকে নামিয়ে এক তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় তিন যুবককে গ্রেপ্তারের পর আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

শুক্রবার রাত সাড়ে আটটার দিকে ফরিদপুর-রাজবাড়ী সীমান্ত এলাকার বসন্তপুর নামক স্থানে এই ঘটনা ঘটে।

র‌্যাব-৮ ফরিদপুর ক্যাম্পের কোম্পানির অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রইছ উদ্দিন বলেন, ধর্ষণের অভিযোগে শনিবার দুপুরে বসন্তপুর বাজার এলাকার অভিযান চালিয়ে তিনজনকে আটক করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনজনই ধর্ষণে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন।

শুক্রবারের ওই ঘটনায় গ্রেপ্তার তিন যুবক হলেন অটোরিকশাচালক রানা মোল্লা (২৪) এবং তার দুই সহযোগী মামুন মোল্লা (২০) ও হান্নান সরদার (২৬)। রানা ও হান্নান রাজবাড়ী সদর উপজেলার বসন্তপুর ইউনিয়নের মজলিসপুর গ্রামের বাসিন্দা। আর মামুনের বাড়ি খানখানাপুর ইউনিয়নের দত্তপাড়া গ্রামে।

র‌্যাব কর্মকর্তা রইছ উদ্দিন আরও জানান, ধর্ষর্ণের ঘটনায় ওই তরুণী বাদী হয়ে রবিবার সকালে রাজবাড়ী সদর থানায় একটি মামলা করেন। তিনি বলেন, ওই তরুণী একজন চিকিৎসক। শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারি তিনি ঢাকা থেকে তাঁর বাড়ি গোপালগঞ্জ যাচ্ছিলেন। রাজবাড়ী সদর উপজেলার গোয়ালন্দ মোড় এলাকা থেকে ফরিদপুর যাওয়ার জন্য সন্ধ্যা সাতটার দিকে গাড়ি খুঁজছিলেন। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে ফরিদপুরের শিবরামপুরে নামিয়ে দেওয়ার কথা বলে ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক চালক রানা মোল্লা তাকে গাড়িতে তোলেন। এ সময় ইজিবাইকে রানার দুই সহযোগী মামুন ও হান্নান ছিল। পথে বসন্তপুর এলাকায় নির্জন স্থানে যাওয়ার পর তরুণীকে ইজিবাইক থেকে নামিয়ে চালক রানাসহ তারা তিনজন ধর্ষণ করেন। পরে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আরও তিন-চারজনকে ডেকে আনা হয়। তাঁরাও ওই তরুণীকে ধর্ষণ করেন। একপর্যায়ে তরুণীর চিৎকারে আশপাশের লোকজন এলে অভিযুক্ত ব্যক্তিরা পালিয়ে যান। ওই তরুণী স্থানীয় এক বাড়িতে আশ্রয় নেন। পরদিন শনিবার সকালে তিনি ফরিদপুরে র‌্যাবকে বিষয়টি জানান।

রাজবাড়ী সদর থানার ওসি (তদন্ত) কামাল হোসেন ভূইয়া বলেন, রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ওই তরুণীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়েছে। অভিযুক্ত ব্যক্তিদের দুপুরে রাজবাড়ী আদালতে পাঠানো হয়েছে। আদালত তাঁদের জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open