‘মুস্তাফিজরা এবার বুঝবে পেসারদের কতটা পরিশ্রম করতে হয়’


সুরমা টাইমস ডেস্ক ঃঃ শ্রীলঙ্কার মাটিতে আসন্ন ত্রিদেশীয় ‘নিদাহাস ট্রফি’ উপলক্ষে পেসারদের নিয়ে ৯ দিনের বিশেষ অনুশীল ক্যাম্প শুরু করেছেন জাতীয় দলের পেস বোলিং কোচ ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তি কোর্টনি ওয়ালশ। আজ শুক্রবার ছিল ক্যাম্পের প্রথম দিন। অনুশীলন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন দীর্ঘদেহী সাবেক এই ক্রিকেটার। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের পর দেশের মাটিতেও টানা তিন সিরিজে ব্যর্থ হওয়া পেসারদের ফর্মে ফেরানোই তার মূল লক্ষ্য।

ওয়ালশ বললেন, ‘বোলারদের মানসিক দিক নিয়ে কাজ করা হচ্ছে ক্যাম্পে। ওরা নিজেদের ক্ষমতা জানে এবং স্বাভাবিকভাবে যা হয় সেটাই করছে। আমার মতে, শেষ সিরিজে এটাই করতে পারেনি। পেসাররা একটু বেশিই বাড়তি কিছু করতে চেয়েছে। ওদের জানতে হবে কোন পরিস্থিতিতে কী করতে হবে এবং কীভাবে করতে হবে। যদি ধারাবাহিকতা আনতে পারে, তবে ১০ বারের মধ্যে আটবারই ফল নিজেদের পক্ষে আসবে। আমরা চেষ্টা করছি ওদের ধারাবাহিক বানাতে এবং শান্ত থেকে কোনো কিছু করা শেখাতে।’

বাংলাদেশে পেসারদের বড় সমস্যা ধারাবাহিকতার অভাব এবং সঠিক সময়ে উইকেট তুলে নিতে না পারার ব্যর্থতা। মুস্তাফিজ থেকে শুরু করে সবাই এই সমস্যায় জর্জরিত। ওয়ালশ সেটা ধরতে পেরেছেন। ক্যাম্পের উদ্দেশ্য নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা ঘরের মাটিতে ভালো করতে পারিনি। সামনে শ্রীলঙ্কায় আমাদের জন্য খুব চ্যালেঞ্জিং সিরিজ আছে।আমরা ধারাবাহিকতার ওপর মনোযোগ দেব। যতটা চেয়েছিলাম শেষের দিকে ততটা ধারাবাহিক বোলিং আমরা করতে পারিনি। ওরা যদি ধারাবাহিক হতে পারে তাহলে ১০ বারের মধ্যে আটবারই তা ওদের পক্ষে কাজ করবে।’

পেসার হিসেবে প্রতিপক্ষের আতঙ্ক হয়ে ওঠার জন্য প্রচুর পরিশ্রম আর অনুশীলনের বিকল্প নেই। সেই সঙ্গে ইনজুরিতে পড়াও চলবে না। ইনজুরি হলো পেসারদের বড় শত্রু। এসব বিষয় নিয়েই টানা ৯ দিন কাজ করবেন ওয়ালশ, ‘আসন্ন সিরিজে নিজেদের ভূমিকাটা ওদের বুঝতে হবে। এই ক্যাম্প থেকে ওরা শিখবে পেস বোলিংয়ের জন্য কতটা কঠোর পরিশ্রম দরকার হয়। আমরা এটাকে যতটা সম্ভব সরল রাখার চেষ্টা করছি। এই ক্যাম্পে অনেক কিছু শেখার সুযোগ পেসারদের সামনে। মাঠে ওদের যে কোনো কিছুর জন্য তৈরি থাকতে হবে।

Sharing is caring!

Loading...
Open