নবীগঞ্জে ৪ টি কোচিং সেন্টার বন্ধ

সুরমা টাইমস ডেস্ক::      সিলেটের হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়মনীতি লঙ্ঘন করে কোচিং ও প্রাইভেট বাণিজ্য গড়ে উঠেছে। এসব কোচিংয়ে গরিব শিক্ষার্থীরা পড়তে না পেরে ভাল ফলাফল করতে পারছে না। এছাড়া বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা অধিকাংশ সময় কোচিং বাণিজ্যে ব্যস্ত থাকার কারণে বিদ্যালয়ে যথাযথ পাঠদান করতে পারছে না। ফলে বিদ্যালয়গুলোতে আশানুরূপ ফলাফল হচ্ছে না। সরকারী ভাবে কোচিং ও প্রাইভেট নিষিদ্ধ থাকার পরও নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা বিদ্যালয়ে ও বিভিন্ন বাসা বাড়িতে প্রাইভেট পড়াচ্ছেন।

অভিভাবকরা অভিযোগ করে বলেন, শিক্ষকরা মনোযোগ সহকারে শ্রেণী কক্ষে পাঠদান করে না। ফলে বাধ্য হয়েই ছাত্র-ছাত্রীরা প্রাইভেট ও কোচিং করতে হচ্ছে। কিন্তু অনেক অসচ্ছল অভিভাবকের পক্ষে প্রাইভেট পড়ানো সম্ভব হয় না। এতে করে বার্ষিক পরীক্ষায় ভাল ফলাফল করতে পারে না। প্রাইভেট পড়ানো নিষেধ থাকলেও এ নিষেধ কেউ মানছে না।

নবীগঞ্জ উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা আতাউল গণি ওসমানী গত বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় বৃহস্পতিবার সকালে কোচিং বাণিজ্য চলাকালে ওই উপজেলার আউশকান্দি বাজার ও বাজারের নিকটে ৪ঠি অবৈধ কোসিং সেন্টার বন্ধ করে দেন।

এ সময় জনসাধারণ ও সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, যদি কোন শিক্ষক কোচিং বাণিজ্যের সাথে জড়িত থাকেন তাহা হলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রাইভেট পড়ানো নিষেধ করেছে এ নিষেধ অমান্য করে কেউ কোচিং বা প্রাইভেট পড়ালে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, ইউএনও আতাউল গণির নেতৃত্বে যখন অভিযান চলছিল, তখন কোচিং সেন্টারের শিক্ষকরা সাংবাদিকদের ক্যামেরা এড়িয়ে পালিয়ে গিয়েছেন।

Sharing is caring!

Loading...
Open