বিশ্বনাথে ৪ সন্তানের জননীর আত্মহত্যা

নিজস্ব প্রতিনিধি::         সিলেটের বিশ্বনাথে স্বামীর অত্যাচার সইতে না পেরে গলায় ওড়না পেচিয়ে আত্মহত্যা করেছেন রহিমা বেগম (৩৮) নামে ৪ সন্তানের জননী।

আজ বুধবার (০৭ই ফ্রেব্রুয়ারি) সকাল ১১টার দিকে উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের রামপাশা দক্ষিণপাড়া গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে। রহিমা ওই গ্রামের আমির আলীর স্ত্রী।

খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তার লাশ ও সাথে থাকা একটি চিরকুট উদ্ধার করে। ঘটনার পরপরই পালিয়ে যায় রহিমার স্বামী আমির আলী।

জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে নানা কারণে পারিবারিক কলহ চলে আসছিল রহিমা-আমিরের। প্রায় সময় স্ত্রী রহিমাকে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন করতেন স্বামী আমির আলী। বুধবার সকালেও তাদের ঝগড়া হয়। এরপর সকাল ১১টার দিকে সকলের অগোছরে বসতঘরের তীরের সঙ্গে গলায় ওড়না পেচিয়ে ফাঁস নেন রহিমা। স্বামীসহ আশপাশের লোকজন তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

রহিমা বেগমের ছেলে শানুর আলী জানায়, আমাদের আয়-রোজগারের টাকা নিয়ে বাবা প্রায়ই মায়ের সাথে ঝগড়া করতেন। মাকে নির্যাতন করতেন। বুধবার সকালেও তাদের ঝগড়া হয়।

রহিমার সত্তরোর্ধ মা আলেছা বেগম বলেন, আমিরের অত্যাচার নির্যাতন সইতে না পেরে আমার মেয়ে মরেছে। আমি এর বিচার চাই।

থানার ওসি শামসুদ্দোহা পিপিএম বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সিলেট এমএজি ওসমানী হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। আইন অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Sharing is caring!

Loading...
Open